অকালে পেকেছে চুল?

0
335

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আহনাফ। বন্ধু-বান্ধবরা টিটকারি মেরে কি মামা, বিয়ে করার সময় মেয়ে তো তোমার সাদা চুল দেখেই পালাবে এসব কথা বলতে বলতে অতিষ্ঠ করে ফেলছে তাকে!

একই অবস্থা ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তামান্নার। মাত্র ২১ বছর বয়সেই মাথার চুলে সাদাটে ভাব দেখে দিচ্ছে তার। কলপ করবে কি করবে না তা নিয়ে বেশ দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ভুগে, অনেকের অনেক রকম কথা শুনে শেষ পর্যন্ত সাধের চুলগুলোকে হিজাবের আড়ালে ঢেকে ফেলতে বাধ্য হল বেচারি!

শুধু তামান্না বা আহনাফই নয়, আজকাল এরকম সমস্যায় পড়তে হচ্ছে অনেককেই। নারি-পুরুষ নির্বিশেষে আজকাল এটি একটি খুব কমন সমস্যায় পরিণত হয়েছে। চুল পাকবে এটা খুবই স্বাভাবিক, কিন্তু বয়স ২০ বা ৩০ এর কোটায় পৌঁছানোর আগেই যদি চুলে পাক ধরা শুরু হয় তবে তা নিঃসন্দেহেই বিব্রতকর।

ঘাবড়ানোর কিছু নেই, সমাধান এখন আপনার হাতের মুঠোয়ঃ

চুল পাকার ঘরোয়া সমাধানঃ

ঘরোয়া পদ্ধতিতে যেকোনো প্রকার রূপচর্চা করার সবচেয়ে বড় সুবিধা হল এটি সম্পূর্ণরূপে পার্শ্বপ্রত্রিক্রিয়া মুক্ত। ভারতীয় আয়ুর্বেদিক চিকিৎসার উপরে আস্থা প্রকাশ করে পৃথিবীর প্রায় সব দেশের চিকিৎসকরা। চাইলে আপনিও নিশ্চিন্তে ভরসা করতে পারেন আয়ুর্বেদের উপর।

ভেষজ কিছু উপাদান ব্যবহার করে চুল পাকা বন্ধ করার সমাধান দেখে নেয়া যাক।

নারিকেল তেল ও লেবুর রসঃ

চুল পাকার মতো বিরক্তিকর একটি সমস্যা থেকে উদ্ধার পাওয়ার জন্য খুব কার্যকরী একটি সমাধান হল তেল ও লেবুর মিশ্রণ। নারিকেল তেলের সাথে লেবুর রস মিশিয়ে চুল ম্যাসেজ করে নিন। সম্ভব হলে প্রতিদিন ব্যবহার করুন এই মিশ্রণটি। রাতে চুলে তেল ম্যাসেজ করে সকালে উঠে ধুয়ে ফেলুন। কিছুদিনের মধ্যেই উপকার মিলবে চুল পাকা সমস্যার থেকে। একইসাথে এই মিশ্রণটি আপনার চুলকে সতেজ ও উজ্জ্বল করে তুলবে।

পেঁয়াজের রসঃ

পেঁয়াজ আপনার চোখকে কাঁদালেও চুলকে কিন্তু ঠিকই হাসাতে পারে। পেঁয়াজের রস বা পেঁয়াজ বাটা চুলের জন্য খুবই উপকারী একটি টনিক। খুব সহজে ব্যবহার করতে পারেন এই উপাদানটি। পেঁয়াজের খোসা ছাড়িয়ে মাথার তালুতে ভালোভাবে ঘষে নিন। এবার রসটি শুকানোর জন্য কিছুটা সময় দিন। শুকিয়ে গেলে প্রায় ৩০ মিনিট পর পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। চাইলে শ্যাম্পু দিয়েও চুল ধুতে পারেন। কেননা পেঁয়াজের রসের গন্ধ খুব একটা মোহনীয় নয়!Remedies for Get Rid of Grey Hair by Using Foods1

নিয়মিত পেঁয়াজ ব্যবহার করলে কিছুদিনের মধ্যেই আপনার সাদা চুল কালো হওয়া শুরু করবে। আর যদি নিয়মিত ব্যবহার না করে সপ্তাহে একদিন বা এরকম কালেভদ্রে একদিন মাথায় পেঁয়াজের রস লাগান, তাহলে কিন্তু কাঙ্ক্ষিত ফল পাওয়া যাবে না।

লেবুর রস ও আমলকীঃ

গুজবেরি বা আমলকী ভারতীয় উপমহাদেশের খুব বিখ্যাত একটি ফল, প্রায় সব ধরণের রূপচর্চায় অনিবার্য উপাদান হিসেবে ব্যবহৃত হয় এটি।

সাদা চুল দূর করতে আমলকীর গুড়ো ব্যবহার করতে পারেন। লেবুর রসের সাথে আমলকীর গুড়ো মিশিয়ে চুলে লাগিয়ে নিন। চুলের সাথে মাথার ত্বকেও ভালো করে লাগিয়ে নিন মিশ্রণটি। নিয়মিত ব্যবহারে অল্পদিনের মধ্যেই সাদা চুল কালো হওয়া শুরু করবে।

গাজরের রসঃ

গাজরের রস শুধু খেতেই মজা না, এর রয়েছে বেশ কিছু ভেষজ গুণাগুণও। এটি কিন্তু মাথায় লাগানোর কোন উপাদান নয়, বরং এটি পান করার মাধমে আপনার শরীরের ভিতরে প্রবেশ করে চুল পাকা সমস্যার সমাধান করবে একদম গভীর থেকে। ঘরে বসেই গাজরের রস বানিয়ে খেতে পারেন। প্রচুর পরিমাণে গাজরের রস আপনার শুধু চুলের সমস্যাই নয়, পরিপাক ব্যবস্থার যেকোনো সমস্যাও দূর করবে।

অল্প বয়সে চুল পাকিয়ে সবার কাছে হাসির পাত্র হওয়ার কি দরকার? সমাধান যখন হাতের মুঠোই আছে তখন দেরি না করে এক্ষনি তা প্রয়োগ করুন। সাদা চুলকে বলুন টাটা আর রেশমি কালো চুলের হাওয়ায় নিজেকে করে তুলুন আরও তরুণ!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here