অনলাইন বিজনেসের দারুণ কিছু আইডিয়া

0
233
এখন এমন অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে যারা ঘরে বসে কেনা-কাটা ও কাজ করার সুযোগ দিয়ে থাকে যার ফলে অনেকে এটাকে কাজে লাগিয়ে অতিরিক্ত আয় করে থাকে

এখন যেন গোটা পৃথিবীটাকে অনলাইন আর অফলাইন এই দুই ভাগে ভাগ করে ফেলা যায়। বর্তমান সময়ে সব কিছুই অনলাইনে করা যায়। বিজনেসটাও এর ব্যতিক্রম নয়। এখন এমন অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে যারা ঘরে বসে কেনা-কাটা ও কাজ করার সুযোগ দিয়ে থাকে যার ফলে অনেকে এটাকে কাজে লাগিয়ে অতিরিক্ত আয় করে থাকে। আবার অনেক লোক এটাকে ফুল টাইম কাজের উৎস হিসাবে গ্রহণ করে নিয়েছে এবং তাদের আয় ও অনেক ভালো। অনলাইনে কম সময়ে অনেক কিছু করা যায় যা সাধারণভাবে কল্পনাই করা যায় না। তাছাড়া এখানে অর্থ লগ্নি করার ঝামেলাটাও কম বলে অনেকেই উৎসাহিত হচ্ছেন এ ব্যাপারে। অনলাইন ব্যবসা সংক্রান্ত কয়েকটি আইডিয়া নিয়ে আমাদের আজকের আর্টিকেল।

১। ওয়েব ডিজাইনিংঃ
আপনার যদি ওয়েব ডিজাইন এবং HTML সম্পর্কে জ্ঞান থাকে তাহলে ওয়েব ডিজাইন করার কাজটিকে ব্যবসা হিসেবে নিতে পারেন। এখন এমন অনেকে অনলাইনে ব্যবসা করছেন যারা অচীরেই ওয়েবসাইট খুলতে আগ্রহী। যাদের ওয়েবসাইট আছে, তাদেরও অনেকের সাইট অনেক দূর্বল ডিজাইনের কারণে আকর্ষণিয় হচ্ছে না। এই বাজারটি ধরতে পারেন কিনা দেখুন।
 
২। রিজিউম বা সিভি লেখাঃ
চাকরি সন্ধানী একজন ব্যক্তির প্রথম প্রয়োজন ভাল একটি রিজিউম এর। আইডিয়াটি হয়ত অদ্ভুত লাগছে আপনার। কিন্তু একটি ভাল, আকর্ষণীয় রিজিউম কিন্তু সবাই লিখতে পারে না। নীলক্ষেতের ফটোকপির দোকানে রিজিউম লেখায় এমন কত বেকার যুবক-যুবতী। যাদের দিয়ে লেখায় তাদের নিজেদের শিক্ষার দৌড় আর কতটুকু? আপনি একজন উচ্চশিক্ষিত মানুষ হয়ে যদি এটিকে পেশা হিসেবে নেন কেমন হবে ভেবে দেখুন তো!
এমন অনেক সাইট আছে যারা পজেটিভ কমেন্টের জন্য টাকা দেয়
এমন অনেক সাইট আছে যারা পজেটিভ কমেন্টের জন্য টাকা দেয়

৩। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংঃ

অনেক পেইজে বা সাইটে প্রডাক্টের নীচে আমরা কাস্টমারের কমেন্ট দেখি। কমেন্ট পড়ে ক্রেতা আরও আগ্রহী হয়। একজন ক্রেতা যখন পণ্য সম্পর্কে আরেকজন ক্রেতার ইতিবাচক বক্তব্য পড়েন তখন পণ্যটির যাথার্থতার আর কোন সার্টিফিকেট লাগে না। এমন অনেক সাইট আছে যারা পজেটিভ কমেন্টের জন্য টাকা দেয়। এমন সাইট খুঁজে বের করতে পারেন। কোন পেইজ বা সাইট ছাড়াই আয় হবে আপনার।
৪। নিউট্রিশন কোচঃ
এই পেশাটি একটু জটিল। এরকম একটি ব্যবসায় আপনাকে মানুষের স্বাস্থ্য এবং পুষ্টি সঙ্ক্রান্ত তথ্যের জন্য অর্থের বিনিময়ে পরামর্শ দিতে পারেন। আপনি নিজে যদি নিউট্রিশনিস্ট নাও হন, একজন দক্ষ ব্যক্তিকে নিয়োগ দিন। এমন অনেক জিম ইন্সট্রাক্টর এবং প্রশিক্ষক আছেন যারা পার্ট টাইম হিসেবে এই কাজটি করতে রাজী হবেন। সাথে সাজসজ্জার পরামর্শ যদি যোগ করতে পারেন তাহলে তো কথাই নেই!
৫। ই-বুক লেখাঃ
অনেক লেখক আছেন যারা বই লেখেন কিন্তু প্রকাশকরা তাদের বই প্রকাশ করছেন না বলে থেমে আছেন। মানুষ কিন্তু এখন কাগজের বই এর বাইরে অনলাইনে বই পড়তে আগ্রহী হচ্ছে। অনলাইনে খুবই কম খরচে ই-বুক হিসেবে নিজের লেখা প্রকাশ করতে পারেন। নিজের মেধাকে প্রকাশিত করে পরিচিতি বাড়াতে পারেন সহজেই।
তথ্যসূত্রঃ বিজনেস নিউজ ডেইলি ডট কম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here