আপনার সোনামনি প্রতিকূল পরিবেশেও থাকুক সুরক্ষিত

প্রতিদিন পত্রিকার পাতা খুললেই দেশের আনাচে-কানাচে ঘটে যাওয়া যৌন নির্যাতনের নানা চিত্র আমাদের চোখে পড়ে। এর থেকে রক্ষা পায় না ৮০ বছরের বৃদ্ধা থেকে সেই ছোট্ট শিশুটিও। আজকের দিনে শিশুরাই সাধারণত যৌন নিগ্রহের শিকার হয়ে থাকে বেশি। শিশুদের সরলতার সুযোগ নিয়ে দুষ্কৃতকারীরা তাদের উদ্দেশ্য চরিতার্থ করে। অনেক সময় শিশুরা বুঝতে পারে না তার সঙ্গে কী ঘটতে যাচ্ছে। আবার কখনও কখনও বুঝতে পারলেও ভয়ে সে কোন প্রতিবাদ কিংবা প্রতিরোধ করতে পারে না। এতে ওইসব শিশুর শৈশব মারাত্নকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

এক্ষেত্রে শিশুদের সুষ্ঠুভাবে বেড়ে উঠতে সাহায্য করতে পারেন কেবল আপনিই। ছোটবেলা থেকে তাদের যৌন নির্যাতনের কিছু বিষয় সম্পর্কে ধারণা দিন যাতে তারা আপনার অবর্তমানে নিজেদের রক্ষা করতে পারে। তবে এসব কোমলমতি শিশুদের রক্ষায় বাবা-মা থেকে শুরু করে স্কুল কর্তৃপক্ষও যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। তারপরও বাচ্চাদের সঙ্গে হঠাৎ করেই ভয়ঙ্কর কোন ঘটনা ঘটে যেতে পারে।

দেশে কঠোর কোন আইন না থাকায় দিনের পর দিন এমন ঘটনা বেড়েই চলছে। যতদিন না লোকজনের মানসিকতা পরিবর্তন হবে ততদিন পর্যন্ত এ অবস্থা কোনমতেই বদলানো যাবেনা। কাজেই প্রতিকূল পরিবেশে বাচ্চাদের নিরাপদে এবং সুরক্ষিত রাখতে ছোটবেলা থেকেই তাদের যৌন নির্যাতনের বিষয়গুলো সম্পর্কে ধারণা দিন। এক্ষেত্রে মেনে চলুন কিছু টিপস-

ti-1

টিপস-১
প্রথমে শিশুদের বয়স বিবেচনায় নিয়ে তাদের ‘সেক্স’ বিষয়ে মৌলিক একটি ধারণা দিন। এতে করে তারা সহজেই যৌন নির্যাতনের বিষয়টি বুঝতে পারবে।

ti-2

টিপস-২
সবসময় শিশুদের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলুন। যাতে সে যে কোন কথা আপনার সঙ্গে শেয়ার করতে ভয় না পায়। তাহলেও সে  যৌন নির্যাতন সম্পর্কে একটা ভালো ধারণা পাবে।

ti-3

টিপস-৩
যৌন নির্যাতন সম্পর্কিত বিষয়গুলো শিশুদের সামনে তুলে ধরুন। তাদেরকে এটা বোঝান যে, যদি তাদের সঙ্গে কোন খারাপ ঘটনা ঘটে থাকে তাহলে তার জন্য তারা কোনমতেই দায়ী নয়। এতে করে শিশুরা যে কোন তথ্য দিতে আর ভয় পাবে না।

ti-4

টিপস-৪
শিশুদের আগেই কিছু সুরক্ষা টিপস দিয়ে রাখুন। তাদের বলুন, তারা যন কোন আগন্তকের কাছে না যায়, কোন জিনিস না নেয় কিংবা তাদের সঙ্গে কোন কথা না বলে। ওই আগুন্তক যদি শিশুকে বলে যে, তার বাবা-মা তাকে নেওয়ার জন্য পাঠিয়েছে তারপরও যেন সে তার সঙ্গে না যায়। এসব কথা শিশুকে আগেই শিখিয়ে রাখুন।

ti-5

টিপস-৫
আবার শরীরের গোপনীয় কিছু অঙ্গ-প্রতঙ্গ দেখিয়েও শিশুদের যৌন নির্যাতনের শিক্ষা দিতে পারেন। তাদের বলুন, শরীরের নির্দিষ্ট এসব অঙ্গ স্পর্শ করলেই বুঝবে তোমার সঙ্গে কেউ ভুল কাজ করছে। তৎক্ষণাত তাদের থেকে সাবধান থাকবে।

ti-6

টিপস-৬
অনেকেই আছেন যারা যৌনতা বিষয়ে তাদের সঙ্গে শেয়ার করতে বাচ্চাদের উৎসাহিত করেন। তারা বাচ্চাদের এসব বিষয় অন্যদের কাছে গোপন রাখতে বলেন। এ রকম কেউ করলে শিশুরা সে কথাও যাতে আপনাকে জানায় সে ব্যাপারে খেয়াল রাখুন।

ti-7

টিপস-৭
অনেক পরিস্থিতিতে পড়ে বাচ্চারা ভয় পেয়ে যেতে পারে। কাজেই তাদের বলুন, যে ঠিক আছে। কোন সমস্যা নেই। আসলে দোষ ওই ব্যক্তিরই। এতে করে বাচ্চারা সতর্ক থাকার পাশাপাশি আপনার অবর্তমানে যৌন নির্যাতনের হাত থেকেও নিজেকে বাঁচাতে পারবে।

সূত্র-আয়েশা সিদ্দিকা

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here