আয়রনের অত্যাচার ছাড়া কোঁকড়া চুল সোজা করুন ঘরোয়া উপায়ে!

0
394

শুধুমাত্র চুলের স্টাইলই পাল্টে দিতে পারে আপনার পুরো লুক। বিশ্বাস হচ্ছে না? আপনার চুল যদি কার্লি হয়ে থাকে তবে আজই একটু স্ট্রেইট করে দেখুন না! পার্থক্যটা নিজেই বুঝতে পারবেন।curly hair

আপনার চুল কেমন হবে তা তো আর আপনার হাতে নেই। অনেকেরই কোঁকড়া চুল খুব পছন্দ। কিন্তু যাদের চুল কোঁকড়া শুধু তারাই জানেন, এই চুল সামলানো কত কষ্টকর। চাইলে চুল ছেড়ে ঘুরে বেড়াতে পারেন না তারা, দমকা হাওয়ার এক ঝাপটাই যথেষ্ট তাদের পুরো হেয়ার স্টাইলের বারোটা বাজিয়ে দিতে! সেজন্যই তো বিউটি পার্লারগুলো লাগাতার হেয়ার রিবন্ডিং এর অ্যাড দিয়ে দিনের পর দিন এই বেচারিদের পকেট খালি করছে।

আপনি যদি কোঁকড়া চুল নিয়ে সন্তুষ্ট না হন তাহলে কিন্তু চাইলেই ঘরে বসে চুল সোজা করে নিতে পারেন। ভাবছেন হেয়ার স্ট্রেইটনার বা আইরনের কথা বলছি? উহু, চলুন দেখে আসা যাক সহজ কয়েকটি ঘরোয়া পদ্ধতি।

চুল না শুকানো পর্যন্ত আঁচড়াতে থাকুনঃ

  • চুল ধোয়ার পরে বাতাসে চুল পুরোপুরি শুকাতে দিন।
  • প্রতি ৫ মিনিট অন্তর অন্তর চুল আঁচড়াতে থাকুন।
  • চুল কয়েকভাগে ভাগ করে নিন।
  • আঁচড়ানোর সময় প্রতিটি অংশ কয়েক সেকেন্ড করে টেনে রাখুন যাতে চুল সোজা হওয়ার সুযোগ পায়।

চাইলে ফ্যানের সামনে বসেও এই কাজটি করতে পারেন। তাতে চুল তাড়াতাড়ি শুকাবে, তবে সেক্ষেত্রে চুল আরও ঘন ঘন ব্রাশ করতে হবে।

পুরো চুল রোল করে নিতে পারেনঃ

  • চুল রোল করার জন্য বড় সাইজের রোলার ব্যবহার করুন।
  • রোলারের আকৃতি হতে পারে সোডা ক্যানের মতো।
  • ভেজা চুলগুলো ভাগ করে রোলারের মধ্যে ঢুকিয়ে দিন।
  • এবার চুলগুলো ভালো করে শুকিয়ে নিন।
  • চুল ঠিকমতো শুকানো খুব গুরুত্বপূর্ণ, কেননা চুলে সামান্যতম পানি থাকলেও তা কার্ল বা ওয়েভ ফিরিয়ে আনতে পারে।BnA_1

হেয়ার ব্যান্ডস পরে থাকুন সারারাত ধরেঃ

  • হালকা ভেজা চুলে একটি বা দুটি পনিটেইল বেঁধে ফেলুন।
  • একটি নরম হেয়ার এলাস্টিক দিয়ে পুরো চুল বেঁধে নিন।
  • এছাড়া বাড়তি এলাস্টিক দিয়ে পনিটেইলের প্রতি ইঞ্চি বেঁধে ফেলুন যাতে সারারাতে বেণী একটুও এদিক ওদিক না হয়।
  • খুব বেশি টাইট ব্যান্ড ব্যবহার করবেন না, এতে চুলে ভাঁজ পড়ে যাওয়ার সভাবনা থাকে। চুল এভাবে বেঁধে ঘুমাতে যান এবং সকালে উঠে চুল খুলে ফেলুন।

পুরো চুল খোঁপা করে নিনঃ

যদি আপনার চুল কোঁকড়া না হয়ে ওয়েভি হয়, আর চুল যদি আপনার কথা শোনে তাহলে এই পদ্ধতিটি আপনার জন্য প্রযোজ্য।

  • হালকা ভেজা চুলে পনিটেইল বেঁধে ফেলুন এবং দড়ির মতো করে চুল পেঁচিয়ে নিন।
  • পনিটেইল দিয়ে খোঁপা করে ফেলুন এবং একটি হেয়ার ব্যান্ড দিয়ে চুল বেঁধে ফেলুন।
  • এবার চুল শুকাতে দিন। চুল শুকানোর পর ব্রাশ করে পেয়ে যান ঝলমলে সোজা চুল।

তৈরি করে নিতে পারেন প্রাকৃতিক মাস্কঃ

  • ১ কাপ গরুর দুধ বা নারিকেলের দুধের সাথে ১ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন।
  • এই প্যাকের মধ্যে চুল ডুবিয়ে নিন এবং স্কাল্পেও ভালো করে লাগিয়ে নিন।
  • এবার ১ ঘণ্টা অপেক্ষা করে চুল ধুয়ে ফেলুন।

দেখেলেন তো কত সহজে চুল সোজা করে ফেলা যায়? তাহলে কোঁকড়া চুল ঝামেলা মনে হলে কেন অহেতুক সে ঝামেলা সহ্য করবেন? বেছে নিন আপনার জন্য প্রযোজ্য পদ্ধতিটি আর পেয়ে যান ঝলমলে চুলের হাসি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here