একটি প্যালাজো দিয়ে পরুন দশটি জামা

0
1058

হালআমলের অন্যতম জনপ্রিয় পোশাক শারারা, বাজিরাও মাস্তানি বা পুরনো আমলের সেই লং কামিজ বা সেমি লং কামিজ, প্রত্যেকটি পোশাকের মধ্যে একটি অদ্ভুত মিল দেখা যাচ্ছে। প্রতিটি পোশাকেই কামিজের সাথে বা কোটির সাথে পরা হচ্ছে প্যালাজো। জামা যেমনই হোক না কেন, একটি প্যালাজো দিয়ে পরলে পুরো পোশাকটি আবহই বদলে যাচ্ছে।

১৯২০-৩০ সালের দিকে হলিউড নায়িকাদের মধ্যে জনপ্রিয় এই পোশাকটি ঘুরে ফিরে আবার জায়গা করে নিয়েছে বর্তমান প্রজন্মের পোশাক তালিকায়। এজন্যই তো কথায় বলে ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হয়!

যেহেতু প্যালাজো দিয়েই আপনি সব ধরণের পোশাক পরতে পারছেন তাহলে দশটি জামার জন্য দশটি প্যালাজো কেন বানাবেন? তার চেয়ে চিন্তা ভাবনা করে একটি প্যালাজো বানিয়েই পরে ফেলুন আপনার সাধের বেশ কয়েকটি জামা।

কি ধরণের প্যালাজো বানালে আপনার সুবিধা হবে তা নিয়েই আমাদের আজকের আয়োজন।

সুতি, লিলেন বা হাফ কটন প্যালাজো-

সুতি, লিলেন বা হাফ কটন জাতীয় পালাজ্জো বানিয়ে নিতে পারেন এই গরমের জন্য। এই প্যালাজোগুলো সাধারণত বেশ ঢিলা ও লম্বা হয়।  তাই যেকোনো ধরণের পোশাকের সাথে তা বেশ মানিয়ে যাবে। তবে এই প্যালাজোর একটি সমস্যা রয়েছে, তা হল ইস্ত্রি না করে আপনি কখনই সুতি জাতীয় প্যালাজো পরে বাইরে যেতে পারবেন না। এই সমস্যার কথা ও পাশাপাশি গরমে আরামের কথা মাথায় রেখে কিনে নিতে পারেন বা বানিয়ে নিতে পারেন সুতি, লিলেন বা হাফ কটন জাতীয় পালাজ্জো।

এ ধরণের প্যালাজো বাজারে কিনতে গেলে দাম পড়বে ১২০ থেকে শুরু করে ২৫০ টাকার মধ্যে।

সিন্থেটিক প্যালাজো-

গরমের জন্য খুব একটা উপযোগী নাহলেও কর্মব্যস্ত নারীদের কাছে এই প্যালাজোর আলাদা একটি আকর্ষণ আছে কেননা এটি ইস্ত্রি করার ঝামেলা থেকে মুক্ত। তাছাড়া সিন্থেটিক প্যালাজোগুলোর রঙ বেশ উজ্জ্বল হয়।img-thing তাই তরুণী, কিশোরী থেকে শুরু করে মধ্যবয়সী নারীরাও বেছে নিচ্ছেন এধরণের প্যালাজো। এক রঙা এই প্যালাজোর সাথে পরে নিতে পারেন যেকোনো ধরণের প্রিন্টের জামা।

মার্কেটভেদে সিন্থেটিক প্যালাজোর দাম ২৫০ থেকে শুরু করে ২০০০ টাকা পর্যন্ত।

প্রিন্টেড প্যালাজো-

প্রিন্ট বা নকশা করা প্যালাজোগুলো বেশ ফ্যাশনেবল। এখানে কয়েক ধরণের রঙের মিশেল থাকে বলে কয়েক রঙের জামা দিয়ে এই প্যালাজোগুলো পরা যায়। বর্তমানে এক রঙা টপস খুব চলছে।  একটি প্রিন্টেড প্যালাজো কিনে অনায়াসে তার সাথে পরতে পারবেন সাত-আট রঙের টপস। রঙ মিলিয়ে বা কন্ট্রাস্ট করে দুভাবেই পরতে পারেন প্রিন্টেড প্যালাজো।pt8

অন্যান্য প্যালাজোর চেয়ে প্রিন্টেড প্যালাজোর দাম তুলনামুলকভাবে একটু বেশি। ৪০০ থেকে শুরু করে ২৫০০ টাকা দামের প্রিন্টেড প্যালাজো পাওয়া যায়।

তালপাতা প্যালাজো-

শারারা বা বাজিরাও মাস্তানি জাতীয় পোশাকগুলোর সাথে কটি বেশি ব্যবহৃত হয়। moonbasa_pleated_wide_legged_pants_4এ ধরণের জামার সাথে দারুণ মানিয়ে যাবে তালপাতা প্যালাজো। অনেক ঘের ও কুচি দেয়া ডাবল পার্টের এই প্যালাজোগুলো ফ্যাশন ও আরাম দুটো জিনিসের সাথেই যথাযথ নজর দেয়।

নতুন আসা এই প্যালাজোর দাম ৩৫০ থেকে শুরু করে ১৫০০ টাকা পর্যন্ত।

কি রঙের প্যালাজো বানাবঃ

যেহেতু আমাদের মূল লক্ষ্য একটি প্যালাজো দিয়ে বেশ কয়েকটি জামা পরে ফেলার তাই শুরুতেই আমরা রঙের দিকটি বিবেচনা করব। এক্ষেত্রে বেছে নিতে হবে নিরপেক্ষ রঙ অর্থাৎ সাদা, কালো, লাল, গোলাপি, সোনালি বা এ জাতীয় বিভিন্ন রঙ যা প্রায় সব পোশাকের সাথেই যায়। খুব উজ্জ্বল বা খুব ফ্যাকাশে রঙ পরিহার করাই ভালো।

প্যালাজো প্যান্ট কোন স্টাইলে বানাবঃ

আপনার উচ্চতা ও শারীরিক গড়নভেদে কি ধরণের প্যালাজোয় আপনাকে মানাবে তা নির্ভর করে। এজন্য রেডিমেড প্যালাজোর চেয়ে নিজের পছন্দে প্যালাজো বানিয়ে নেয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ। সব ছাঁটের প্যালাজো সবাইকে মানায় না এ কথাটা মনে রাখতে হবে।

আপনার উচ্চতা যদি বেশি হয় তবে আপনি বেশ ঢোলা করে পালাজ্জো প্যান্ট বানাতে পারেন। উচ্চতা কম হলেও ক্ষতি নেই, সেক্ষেত্রে প্যালাজোর সাথে হিল জুতা পরে নিলেই হবে।

যাদের স্বাস্থ্য ভালো তারা প্যালাজোর সাথে ঢিলা টপস পরতে ভুলবেন না, নাহলে আপনাকে আরও মোটা দেখাবে। আপনারা উপরে নিচে সমান ঢোলা প্যালাজো পরলে বেশ ভালো দেখাবে।

আর যারা একটু চিকন ও লম্বা তারা উপরে চাপা হয়ে নিচের দিকে ঢোলা জাতীয় প্যালাজো বানিয়ে নিতে পারেন, এতে আপনাকে ঢ্যাঙা লম্বা বা খুব চিকন লাগবে না।

জেনে নিলেন তো এক পালাজ্জো দিয়ে অনেকগুলো জামা পরার কৌশল। এবার বুদ্ধি করে প্যালাজো বানিয়ে পোশাক বানানোর খরচ কমিয়ে আনুন নিমিষেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here