এক লিপস্টিকের চার কাজ!

এক লিপস্টিকের চার কাজ!
আপনার বোল্ড লিপস্টিককে আপনি চাইলে লিপবাম হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

আর্টস্টাইল কিউরেটর  

বাজারে একের ভেতর তিন কিংবা একের ভেতর দশ- এরকম অনেক বই রয়েছে। আজকে অবশ্য এ নিয়ে কিছু বলবো না। বলতে চাইছি আপনার লিপস্টিকের কথা। আপনার ব্যাবহার করা লিপস্টিককে যদি একের ভেতর চারের নিয়মে ব্যবহার করতে পারেন তাহলে তো দারুন হয়-ই! আজ এ ব্যাপার নিয়ে টুকটাক কথা হোক। আপনি জেনে নিন আপনার লিপস্টিকের কয়েকটি ব্যবহার সম্পর্কে।

ন্যাচারেল শেডের লিপস্টিক চাইলে
ধরুন চাইছেন চেহারায় একটা ন্যাচারেল লুক রাখতে। কিন্তু লিপস্টিকের শেড গাঢ়। কি করবেন এ অবস্থায়? আপনি সুন্দর করে আপনার গাঢ় শেডের লিপস্টিকই দিন। এবার এক টুকরো ট্যিসু দিয়ে লিপস্টিক মুছে ফেলুন। দেখবেন, লিপস্টিক মুছে গেলেও একটা হালকা আভা রয়ে গেছে। আর হ্যা এটাই আপনাকে ন্যাচারাল লুক দিবে।
যদি আপনার ঠোট খুব বেশি শুষ্ক হয় তাহলে লিপস্টিক দেয়ার আগে খানিকটা লিপবাম লাগিয়ে নিন। এরপর লিপস্টিক দিন।

লিপস্টিক হোক লিপবাম
আপনার বোল্ড লিপস্টিককে আপনি চাইলে লিপবাম হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। এক্ষেত্রে বর্নহীন লিপবামই বেশি ভালো হয়। হাতের তালুতে একটু লিপবাম নিয়ে নিন। এবার লিপবাম এর উপর লিপস্টিক ঘষুন। এবার আপনার হাতের তর্জনী আঙুল দিয়ে ভালো করে লিপবাম আর লিপস্টিক মিশিয়ে নিন। তারপর ঠোঁটে লাগিয়ে নিন।
চাইলে ব্রাশ দিয়েও লাগাতে পারেন। আপনি যদি সারাদিন ধরে ঠোঁটের ভেজা ভাবটা বজায় রাখতে চান তবে দুই এক ঘন্টা পর পর ঠোঁটে হালকা করে লিপবাম দিয়ে নিবেন। এতে পিপস্টিক ঠোঁটে থাকবে এবং ভেজা ভাবও থাকবে।

শেষটা হোক ম্যাট টাচে
শখের লিপস্টিক তো দিলেন কিন্তু মন চাইছে একটু ম্যাট ফিনিশিং পেতে। আপনি হয়ত জানেন না আপনার সাধারণ লিপস্টিক দিয়েই খুব সহজে ম্যাট টাচ আনতে পারেন ঠোঁটে। কিভাবে করবেন? প্রথমে ভালো করে লিপস্টিক দিয়ে নিন পুরো ঠোঁটে। এবার একটা পাতলা ট্যিসু ঠোঁটে রাখুন। এবার খানিকটা পাউডার নিয়ে ব্রাশ বা আঙুলের সাহায্যে ট্যিসুর উপর দিয়ে আলতো করে ঘষুন।
এবার ট্যিসু সরিয়ে যে রঙের লিপস্টিক দিয়েছেন সেই রঙের আইশ্যাডো খানিকটা ঠোঁটে লাগিয়ে দিন। অসাধারণ ম্যাট ফিনিশিং টাচ পেয়ে যাবেন খুব সহজেই।

লিপস্টিক যখন ব্লাশন
মনে করুন বাইরে বের হয়েছেন কিন্তু ব্লাশন ব্যাগে নিতে ভুলে গেছেন। গাল দুটোকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে তো ব্লাশন লাগবেই। এমন অবস্থায় আপনার লিপস্টিকটাই ব্যবহার করুন ক্রিম ব্লাশ হিসেবে। লিপস্টিক দিয়ে আলতো করে একটু দাগ টেনে নিন গালের হাড় বরাবর। এরপর, চক্রাকারে ঘষুন। ব্যাস, ব্লাশন কাজ হয়ে গেল। সাজে আসবে নতুনত্ব আর আপনাকে লাগবে দারুণ।
দেখলেন তো, একটি মাত্র লিপস্টিককে কত সহজে চার ভাবে ব্যবহার করতে পারেন! তাহলে আর চিন্তা কি! পছন্দের লিপস্টিক ব্যবহার করুন আর নিজের ইচ্ছে বা প্রয়োজন অনুযায়ী সাজান নিজেকে।

সুত্র: উইম্যান ফ্যাশান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here