এভাবেও বুদ্ধি বাড়ানো যায়!

এভাবেও বুদ্ধি বাড়ানো যায়!
যত বেশি বই পড়বেন, তত বেশি শিখবেন, তত বেশি জানবেন। এতে আপনার বুদ্ধির পরিধি বাড়বে, দৃষ্টিভঙ্গী বদলাবে।

সুরুজ আহমেদ 

সারাদিনে আপনি যা-ই করেন, তার মধ্যেই বুদ্ধির প্রকাশ লুকিয়ে থাকে। ছোট-বড় সব কাজের ক্ষেত্রেই একটা আগাম পরিকল্পনা করে নেয় আপনার মস্তিস্ক। সে অনুযায়ী আপনি চালিত হন। একইভাবে, মস্তিস্ক স্বাভাবিকতা হারিয়ে ফেললে আপনার চিন্তা-ভাবনাও এলোমেলো হয়ে যাবে। তাই মস্তিষ্ককে সজীব রাখতে দরকার শরীর ও মস্তিষ্কের ব্যায়াম। বিশেষজ্ঞরা বলেন, উর্বর মস্তিস্কই সুবুদ্ধির একমাত্র উৎস।

বুদ্ধির বিকাশ নির্ভর করে পরিবেশ, শেখার মাধ্যম ও চর্চার ওপর। মানুষ নিজে থেকেও তার বুদ্ধিমত্তা বাড়াতে পারে। নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন, ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী আর বিষয়ভিত্তিক পড়ালেখার মাধ্যমে বুদ্ধির তিক্ষ্ণতা বাড়ানো যায়। বুদ্ধিমত্তাকে ধারালো করার কিছু পরামর্শ রইল এখানে।

১) জ্ঞান লাভের সবচেয়ে বড় মাধ্যম বই পড়া। যত বেশি বই পড়বেন, তত বেশি শিখবেন, তত বেশি জানবেন। এতে আপনার বুদ্ধির পরিধি বাড়বে, দৃষ্টিভঙ্গী বদলাবে। পাশাপাশি বই আপনাকে আত্নবিশ্বাসী করে তুলবে।

২) বোকাবাক্স দেখা বন্ধ করুন। হ্যাঁ, আমি টেলিভিশনের কথাই বলছি। বলছি না সেখানে জ্ঞান লাভের মত কিছু নাই। অনেক কিছু আছে। তবে টিভি দেখলে শুধু চোখ না, শরীর এবং মনও ক্লান্ত হয়। একই সঙ্গে অনেক সময় নষ্ট হয়। ফলে অন্য দিকে খেয়াল করার মত সময় বা ধৈর্য কোনটিই থাকে না।

৩) নিয়মিত ব্যায়াম করুন। নিয়মিত ব্যায়ামের ফলে আপনার মস্তিষ্ক থাকবে সচল। শুধু মাথার ব্যায়াম না, পাশাপাশি শরীরের ব্যায়ামও করুন। কারণ শরীর সুস্থ থাকলে মনে জোর বাড়ে, শক্তি বাড়ে। গতানুগতিক চিন্তা ছেড়ে সৃজনশীল ভাবনা ধরুন।

৪) বুদ্ধি বাড়তে সাহায্য করে এমন খাবার খান। ফল-মূল, মাছ, কলিজা, শস্য দানা- এসব বুদ্ধি বাড়তে সাহায্য করে। আমাদের মস্তিষ্ক যেহেতু গ্লুকোজ নির্ভরশীল, তাই শরীরে গ্লুকোজের পরিমাণ ঠিক রাখুন।

৫) নিয়ম মাফিক ঘুমান। সকাল-সকাল উঠুন। সকালে ঘুম থেকে উঠলে শরীর ও মন দুটোই ভালো থাকে। দেরি করে ঘুম থেকে উঠলে বুদ্ধি লোপ পায়।

৬) নিজেকে নিয়ে ভাবুন। প্রতিদিন যা শিখছেন, তা চর্চা করুন। আপনার শিক্ষাকে মানুষের কাছে উপস্থাপন করুন। গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোয় নিজস্ব মতামত প্রস্তুত করুন। এবং ইতিবাচক বিষয় নিয়ে ভাবুন।

৭) প্রতিদিন কমপক্ষে ১৫ থেকে ২০ মিনিট মেডিটেশন করুন। মেডিটেশন করলে চিন্তা ও চাপ কমে। মনোযোগ বাড়ে। বুদ্ধি বাড়বে।

নিজেকে নিয়ে ভাবুন। চেষ্টা করুন। তবেই বুদ্ধি বাড়বে। মস্তিস্ক সক্রিয় রাখুন। জ্ঞানী মানুষের সংস্পর্শে থাকুন।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here