কর্মক্ষেত্রে ফ্যাশনেবল ও অন্যদের স্টাইল আইকন হতে চান?

0
294
প্রতিটি কোম্পানির ধরণের কথা মাথায় রেখে পোশাক নির্বাচন করুন।

একদিকে যেমন কর্মক্ষেত্রে ঢুকতে হলে মেধার লড়াই লড়তে হয়, অপরদিকে কোন কর্মক্ষেত্রে যোগ দেয়ার পর সেখানকার মধ্যমণি হতে চাইলে আপনাকে নিজেক লুকের দিকেও নজর দিতে হবে।

আধুনিক যুগের সাথে তাল মিলিয়ে নারী-পুরুষ সবাইকে মেধা ও যোগ্যতার পরীক্ষা দিয়ে স্ব স্ব কর্মস্থানে আধিপত্য বিস্তার করতে হচ্ছে। ঘরে বসে খেয়ে, শুয়ে আর ঘুমিয়ে দিন কাটানোর সময়টি চলে গেছে অনেক আগেই।

অফিসে, হোটেলে বা হসপিটালে মোট কথা আপনি যেখানেই কাজ করুন না কেন সেখানে নিজেকে কিভাবে উপস্থাপন করবেন তা নিয়েই আমাদের এই প্রতিবেদন।

আপনার প্রতিষ্ঠানের ধরণের বিষয়টি বিবেচনায় রাখুন

প্রতিটি প্রতিষ্ঠানই চলে তাদের নিজস্ব গতিতে। আপনি একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে যা পরে যেতে পারবেন তা নিশ্চয় একটি আর্মি ক্যাম্পে পরতে পারবেন না!

খেলার ময়দানে কিছুটা ছোট দৈর্ঘ্যের পোশাক পরার উপায় থাকলেও সেই একই পোশাক ঠাই পাবে না আপনার অফিসে। কাজেই মোটামুটি প্রতিটি কোম্পানির ধরণের কথা মাথায় রেখে পোশাক নির্বাচন করুন। আর অফিসে যদি ড্রেস কোড থাকে তাহলে তো আর কথাই নেই! সম্মানের সাথে কোডটি মেনে চলুন।

ফিট পোশাক পরিধান করুন

শুনে মনে হতে পারে যে পোশাক তো আমরা সবসময়ই ফিটফাট পরি, এ আবার নতুন কি? নতুন করেই নাহয় পুরনো বিষয়টিকে আরেকবার বিবেচনায় আনুন।

ফ্যাশন বিশেষজ্ঞ বারবারা প্যাচার বলেন, আপনার পোশাক যদি খুব ঢিলা হয় বা খুব আঁটো হয় তবে আপনাকে দেখতে ভালো লাগবে না। কাজেই পোশাক বানানো বা কেনার সময় আপনার সাইজের সাথে সামঞ্জস্য রেখে সঠিক সাইজের পোশাক বেছে নিন।

মজার বিষয় হল, এক গবেষণায় দেখা গেছে অফিসে কর্মরত নারীরা পুরুষদের ছোট টাই আর পুরুষরা নারীদের অতিরিক্ত সাজসজ্জা দেখে যারপরনাই বিরক্ত হন!

চশমা পরুন সঠিক সাইজের

অফিসে কাজ করতে গেলে চশমার প্রয়োজন হতেই পারে। তবে চশমা যেন আপনার নাক বেয়ে নিচে না পড়ে যায় সে ব্যাপারটি নিশ্চিত করুন। সারক্ষণ হাত দিয়ে চশমা ঠিক করলে কাজ করবেন কখন?  তাই বারবারা বলেন, চশমা হতে হবে একদম ঠিক মাপের। কোনভাবেই এটি যেন কাজ থেকে আপনার মনোযোগ সরিয়ে না দেয়।

কোন কর্মক্ষেত্রে যোগ দেয়ার পর সেখানকার মধ্যমণি হতে চাইলে আপনাকে নিজেক লুকের দিকেও নজর দিতে হবে।
কোন কর্মক্ষেত্রে যোগ দেয়ার পর সেখানকার মধ্যমণি হতে চাইলে আপনাকে নিজেক লুকের দিকেও নজর দিতে হবে।

চুল ভালো করে শুকিয়ে নিন

কখনই ভেজা চুল নিয়ে ঘর ছেড়ে বের হবেন না, অফিসে তো নয়ই। ভেজা আর এলোমেলো চুল এই ইঙ্গিত দেয় যে আপনার জীবন ঠিকঠাক মতো চলছে না।

যার জীবনের প্রতিই কোন খেয়াল নেই, সে ক্যারিয়ারের প্রতি কি মনোযোগ দেবে? এমন একটি প্রশ্ন কিন্তু উঠতেই পারে। কাজেই ভালো করে চুল শুকিয়ে অফিসে ঢুকুন।

 

ব্যাগ নির্বাচনের ব্যাপারে সতর্ক হন

আপনি নিশ্চয় চাইবেন না, ব্যাগ ছাপিয়ে আপনার কাগজপত্র বা প্রয়োজনীয় জিনিস বাইরে উঁকিঝুঁকি দিক? তাই ব্যাগ ব্যবহার করুন সঠিক আকারের।

ব্যাগের ভিতরে-বাইরে সব দিক যেন পরিষ্কার থাকে তা নিশ্চিত করুন। পার্স হোক বা ব্রিফকেস, তা যেন সুন্দর করে, পরিষ্কারভাবে সাজানো থাকে। আর ব্যাগে যদি চেইন না থাকে তবে নিয়মিত ভেজা কাপড় দিয়ে তা মুছে নিতে হবে।

বারবারা ব্যাকপ্যাক জিনিসটিকে অফিসে ক্যারি না করার পরামর্শ দিয়েছেন। এটি কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়েই ভালো মানায়, অফিসে না!

তথ্যসূত্রঃ এক্সিকিউটিভ স্টাইল ডট কম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here