কলেজে ভর্তি হওয়ার আগে নিজেকে গুছিয়ে নিন

কলেজে ভর্তি হওয়ার আগে খেয়াল রাখুন
কলেজে বন্ধুত্ব করুন মন-প্রাণ খুলে। নতুন পরিবেশে নিজেকে মানিয়ে নিন। ভালো লাগবে।

আর্টস্টাইল কিউরেটর 

শিক্ষা জীবনের একটা গুরুত্বপূর্ণ ধাপ কলেজের ফার্স্ট ইয়ার। এ সময় আপনি উচ্চ মাধ্যমিকের গন্ডিতে প্রবেশ করছেন। নতুন এই পরিবেশ ঘিরে আপনার মধ্যে এক কল্পনার জগত সৃষ্টি হবে, এটাই স্বাভাবিক। আনকোরা সব অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে কেটে যাবে আপনার কলেজ জীবন। নিজেকে চেনা, জানা ও বোঝার অনেকটাই হয়ে যাবে এ দু বছরে। এ সময়ের ওপরেই আপনার পরবর্তী জীবনের ভবিষ্যত নির্ভর করবে। তাই সময়টাকে কাজে লাগান, শিখুন এবং সচেতন থাকুন। নিজেকে প্রকাশ করুন।

কলেজের প্রথম বছরে বেশিরভাগ ছাত্রছাত্রীই খেই হারিয়ে ফেলেন। এ সময় কড়াকড়ি কিছুটা কমে যায়, আর বড় হওয়ার একটা উন্মাদনা তো থাকেই। তাই কলেজে ভর্তি হওয়ার আগে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি বিষয়ের প্রতি নজর রাখুন।

কেরিয়ার কাউন্সেলিং
কোন পেশা আপনার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত অথবা আপনার কোন বিশেষ দিকে প্রতিভা রয়েছে তা জানতে কেরিয়ার কাউন্সেলিং করুন। যদিও দশম শ্রেণির আগেই এ কাউন্সেলিং করা উচিত, তা না হয়ে থাকলে কলেজে ফর্ম ফিল আপ করার আগে একবার কাউন্সিলিং করান। আপনার সম্ভবনা সম্পর্কে ধারণা নিয়ে নিন, সে অনুযায়ী পড়ার বিষয় নির্বাচন করুন।

ইমোশনাল স্ট্রেস কাউন্সেলিং
যদি কোনো কারণে প্রচণ্ড ইমোশনাল স্ট্রেসের মধ্যে থাকেন তবে কলেজে ভর্তি হওয়ার আগে মনোচিকিৎসকের কাছে গিয়ে সব বিষয়ে খোলাখুলি কথা বলুন। কলেজে গিয়ে একদম নতুন পরিবেশ, বন্ধু, পড়ার চাপ, র‌্যাগিং, ইত্যাদির সঙ্গে মানিয়ে নিতে নিজের মানসিকতা বদলে নিন। উদ্যমী হোন।

পরীক্ষার ফল ভুলে যান
মাধ্যমিকের ফল যাই হোক না কেন, কলেজে গিয়ে তা নিয়ে একদমই মাথা ঘামাবেন না। অনেক ছাত্রছাত্রী খুব ভাল ফল করে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসে ভোগেন। আবার আর এক দল ফল খারাপ হওয়ায় কলেজে খুব সঙ্কোচে থাকেন। এই দুই মনোভাবই প্রথম বর্ষের পরীক্ষায় ভরাডুবির কারণ হতে পারে। মাধ্যমিক আর মাধ্যমিক স্তরের সিলেবাসের মধ্যে আকাশ-পাতাল পার্থক্য রয়েছে। তাই নিজের সেরাটা তুলে ধরতে চেষ্টা করুন।

স্মার্টনেস বাড়ান
কলেজে অল্পবিস্তর র‌্যাগিং হতে পারে। আমরা এখনও এই ব্যাধিমুক্ত হতে পারিনি। বেশিরভাগ কলেজেই ‘বোকা বানানো’ প্রশ্ন করে র‌্যাগিং করা হয়। র‌্যাগিংয়ের টার্গেট হন প্রধানত তাঁরাই যাদের মধ্যে একেবারেই কনফিডেন্সের অভাব দেখা যায়। তাই নিজের স্মার্টনেস বাড়ানোর চেষ্টা করুন। কিন্তু ‘ওভারস্মার্ট’ হতে যাবেন না। ভালো চরিত্রের বন্ধু নির্বাচন করুন।

কলেজে প্রেম নয়     
কলেজে বন্ধুত্ব করুন মন-প্রাণ খুলে কিন্তু প্রেম নয়। তাহলে পড়ালেখা সিঁকেয় উঠবে। স্নাতক শুরুর আগে এ ভাবনা ছাড়ুন। সম্পর্কের ক্ষেত্রে কেউই সাধারণত এ বয়সে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। তাই এই সময়টায় পড়ালেখার প্রতি মনযোগী হউন।

পড়ালেখার প্রতি মনযোগ দিন
উচ্চ-মাধ্যমিকই আপনার ভবিষ্যত জীবনের ভিত্তি গড়ে দেবে। এ সময় পড়ালেখা বাদে অন্য কিছুতেই মনযোগ দিবেন না। নিয়মিত পড়ার অভ্যাস তৈরি করুন। ক্লাসেও নিয়মিত থাকুন। বন্ধুরা মিলে গ্রুপ স্ট্যাডি করতে পারেন। তাতে ক্লাসের পাঠ আরও স্পষ্ট হবে। শারীরিক সুস্থতার প্রতিও খেয়াল রাখবেন। কারণ শিক্ষা জীবনের মধ্যে এ দু বছরই সবচেয়ে বেশি পরিশ্রমের সময়। কলেজে বিষয়ভিত্তিক পড়ালেখা থাকলেও অনেক বেশি জানতে হয়। ক্লাসে সকলের মধ্যে সেরা হওয়ার চেষ্টা করুন, ভালো লাগবে।

মাদক একবারেই না
কলেজে উঠে বেশিরভাগ শিক্ষার্থীই খোলামেলা পরিবেশের দিকে ঝুঁকে পড়ে।  তখন অনেকে মাদকের নেশায় জড়িয়ে যান। এদেশে অনেক কিছুই আইনসিদ্ধ নয় আবার আইনের ফাঁক বুঝে নেশার কবলে পড়ার ঘটনাও বিরল নয়। এইভাবে চিরজীবনের মতো হারিয়ে গিয়েছেন বহু প্রতিভাবান। আপনিও কি তাঁদের দলেই নাম লিখিয়ে নিজেকে ‘ব্যর্থ’ প্রমাণ করতে চান? ভাবুন। সতর্ক করুন।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here