কানের ময়লা পরিষ্কার না করাই ভাল!

কানের ময়লা পরিষ্কার না করাই ভাল!

কানের ময়লা পরিষ্কার না করাই ভাল!কানে ময়লা জমে আছে? সাধারণ ভাবে বাংলায় যাকে ‘খইল’ বলে। কানের এই খইল পরিষ্কার করার অভ্যাস না করাই ভাল। কারণ, বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ হচ্ছে, কানের খইল পরিষ্কার না করে ‘পুষে’ রাখুন।

এবার ভাবছেন, তাহলে তো ময়লা জমে কানের ক্ষতি হতে পারে, কান ভেতর বিভিন্ন রোগ হতে পারে,  চুলকাবে, শিরশির করবে!  এই ধারণা পুরোপুরি ভুল।

নাক, কান ও গলা বিশেষজ্ঞদের মতে, কানের ময়লা সাধারণত কোনো ক্ষতি করে না। বরং এটি কানকে সুরক্ষিত রাখে। কানের ভেতরে পাইলোসেবাসিয়াস গ্ল্যান্ড থেকে নির্গত সেরুমিনই হচ্ছে এই খইল বা ‘ময়লা’, যা ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাকের আক্রমণ থেকে কানকে সুরক্ষিত রাখে।

সামান্য পরিমাণে অলিভ অয়েল দিয়ে কটনবাটের মতো নরম কিছুর সাহায্যে আলতো করে বের করে নিতে পারেন।
সামান্য পরিমাণে অলিভ অয়েল দিয়ে কটনবাটের মতো নরম কিছুর সাহায্যে আলতো করে বের করে নিতে পারেন।

কানের নালিতে সামনের দিকে থাকা এই পাইলোসেবাসিয়াস গ্ল্যান্ডের ক্ষরণের পাশাপাশি এর সঙ্গে বাইরের ধুলাময়লা মিশে যায়। এর ফলে কানে জমা হয় খইল। এটা আসলে আমাদের শরীরের প্রতিরক্ষারই অংশ। চলাফেরার সময়ে বাইরে থেকে কোনো ধরনের পোকামাকড় কানে ঢুকতে গেলেও এই খইল বাধার সৃষ্টি করে। সাধারণত কানে যখন খইল বেশি জমে যায়, তখন কান সেটা এমনিতেই বাইরের দিকে ঠেলে দেয়। কোনো কোনো সময় খইল বাইরে না-ও আসতে পারে। সে ক্ষেত্রে তা বের করে আনা যায় বলে জানালেন সাবাহ উদ্দিন আহমেদ।

প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়াও বুদ্ধিমানের কাজ হবে।
প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়াও বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

তবে অনেক সময় খইল বেশি শক্ত হয়ে যায়। তখন সহজেই কান থেকে বের হয় না। সে ক্ষেত্রে সামান্য পরিমাণে অলিভ অয়েল দিয়ে কটনবাটের মতো নরম কিছুর সাহায্যে আলতো করে বের করে নিতে পারেন। প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়াও বুদ্ধিমানের কাজ হবে। তবে হুটহাট করে কানের মধ্যে খোঁচানো একেবারেই ঠিক নয়। অনেকেই রাস্তার পাশে বসে দিব্যি কান পরিষ্কার করিয়ে নেন। এটা খুবই বিপজ্জনক! কান যদি পরিষ্কার করতেই হয়, নিজে করুন বা বাসার কারও সাহায্য নিন। তবে শেষ কথা একটাই কান নিজেকে নিজেই পরিষ্কার রাখে।

তথ্যসূত্রঃ মানবকণ্ঠ/বিএএফ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here