কেমন হবে এবার ঈদের সকালের সাজ?

0
300

ঈদের দিনটা আর দশটা দিনের চেয়ে সব দিক থেকেই আলাদা। শুধু ঈদের নামাজ পড়া আর মানুষের বাসায় দাওয়াত খেয়ে বেড়ানোই ঈদের মূল আকর্ষণ নয়, ঈদের সাজকে কেন্দ্র করে মাসব্যাপী প্রস্তুতি নেয়া নারীরা শেষ পর্যন্ত কেমনভাবে নিজেদের উপস্থাপন করছেন তা জানতেও আগ্রহীদের হিড়িক কম থাকে না!

যারা সাধারণত সাজতে পছন্দ করেন না, ঈদের দিনে তারাও হালকা করে হলেও নিজেদের একটু সাজিয়ে নেন। কিন্তু সকালে তো ভারি সাজ একেবারেই বেমানান, আবার নতুন পোশাকের সাথে না সাজলেও চলে না। তাহলে কেমন করে সাজতে হবে এবারের ঈদের সকালে? জানতে চাইলে পড়তে হবে পুরো আর্টিকেলটা!

ঈদের সকালের চোখের সাজঃ

যেহেতু ঈদের সকালের সাজটা খুব ভারি হবে না, কাজেই মুখে হালকা কম্প্যাক্ট পাউডার বুলিয়ে নিলেই চেহারার চিন্তা আর তেমন করতে হবে না। কিন্তু তারপরেও ঈদের দিনের সাজে একটু বিশেষত্ব থাকবে না তা কি হয়? তাই সকালের সাজে বেশি গুরুত্ব দিন চোখের সাজের প্রতি।

কাজল, মাশকারা ও আইলাইনার এই তিনের সমন্বয়ে চোখের সাজে পূর্ণতা ফুটিয়ে তোলা সম্ভব। নতুন পোশাকের সাথে মিলিয়ে বা কন্ট্রাস্ট করে আইশ্যাডো দিতে পারেন। তবে সকালের জন্য অবশ্যই পাউডার আইশ্যাডো ব্যবহার করতে হবে। তরল, ক্রিম বা গ্লিটার জাতীয় আইশ্যাডোগুলো সকালে এড়িয়ে চলাই ভালো।

আইশ্যাডোর পরেই চলে আসে আইলাইনারের কথা। কেউ চাইলে কাজল দিয়েও আইলাইনারের মতো রেখা টানতে পারেন। শুধু কাজল দিয়ে চোখের সাজ এখন বেশ চলছে। আর যারা সাজতে পছন্দ করেন না তারা শুধু কম্প্যাক্ট পাউডার আর কাজল দিয়েই পুরো সকালের সাজ সম্পূর্ণ করতে পারেন।sagota

কেউ চাইলে বাড়তি আইল্যাশ যোগ করতে পারেন। গাঢ় ভ্রু আর ভারি মাশকারার চল চলছে এখন। কাজেই ট্রেন্ড ফলো করে চোখের সাজে উজ্বল আইশ্যাডোর সাথে বাকি টিপসগুলো মেনে চলতে পারেন অনায়াসে।

ঈদের সকালের মুখের সাজঃ

চোখের সাজকে ঈদের সকালে প্রাধান্য দিলেও মুখের সাজকে কিন্তু একেবারে বাদের খাতায় ফেলে দেয়া যাবে না। বাইরে যেতে হলে হলে ত্বকের সাথে মিলিয়ে ফাউন্ডেশন ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু ফাউন্ডেশন যেন ভালোভাবে মিশে যায় তা অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। সবশেষে কম্প্যাক্ট পাউডার তো মেখে নেবেনই।

ফাউন্ডেশনের পর এবার আসবে ব্লাশনের প্রসঙ্গ। সকালের জন্য হালকা গোলাপি, মভ অথবা বাদামি রঙ বেছে নিতে পারেন। ব্লাশনের ব্রাশ বোলানোর পর সবশেষে কম্প্যাক্ট বা ফেস পাউডার ব্যবহার করতে হবে।

তবে কেউ যদি সারাদিনের জন্য একবারে পরিপাটি হয়ে বের হয়ে যেতে চান সেক্ষেত্রে অবশ্যই মেকআপের বেজ ভারি হতে হবে। কন্সিলার, ফাউন্ডেশন এবং কম্প্যাক্ট পাউডার ঠিকমতো নিয়ম মেনে মাখতে হবে।

তৈলাক্ত ত্বকের ক্ষেত্রে ম্যাট বা পাউডার জাতীয় প্রসাধনী বেছে নিতে পারেন। নইলে এই হঠাৎ বৃষ্টি হঠাৎ গরমে মেকআপ দ্রুত গলে যাবে।Nusrat-Faria-1

ঈদের সকালে রাঙিয়ে তুলুন ঠোঁটঃ

মুখ চোখের সাজে পূর্ণতা দান করে রঙ্গিন করে দুটি ঠোঁট। সকালের সাজের জন্য হালকা রঙের লিপস্টিক ব্যবহার করতে পারেন। এই আবহাওয়ার জন্য ম্যাট লিপস্টিকই বেশি মানানসই। পোশাকের সাথে মিলিয়ে যেকোনো হালকা রঙের লিপস্টিক আপনার পুরো লুকে এনে দেবে স্নিগ্ধতার ছোঁয়া।

কেউ লিপস্টিক ব্যবহার করতে না চাইলে হালকা রঙের লিপগ্লস ব্যবহার করতে পারেন।

কেমন হবে সকালের চুলের সাজঃ

ঈদের সকালে ফজরের আজানের সাথেই ঘুম থেকে উঠতে হয় সারাদিনের জন্য প্রস্তুতি নিতে হলে। এই তাড়াহুড়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিপত্তি বাধে চুল নিয়ে।

সকালের সাজকে সহজ ও দ্রুত করতে চাইলে চুল ব্লো ড্রাই করে রাখতে পারেন আগের রাতেই। তা সম্ভব না হলে ঈদের দিন গোসলের সময় ভালো করে শ্যাম্পু ও কন্ডিশনিং করে শুকিয়ে নিয়ে করতে পারেন ব্লো ড্রাই। এতে সারাদিনের চুলের ঝামেলা মিটে যাবে একবারেই।

চাইলে চুল কিছুটা কার্ল করে পাঞ্চ ক্লিপ দিয়ে আটকে নিতে পারেন। সকালের ছিমছাম একটা লুক চলে আসবে এতে।

চুল একটু ভিন্ন আঙ্গিকে বাঁধতে চাইলে চলে যেতে পারেন পার্লারে। আগের রাত্রে চুল সেট করে ঈদের দিন চুল না ভিজালেও সুন্দর সেট থাকবে আপনার হেয়ার স্টাইল।

চুল লম্বা হলে খোঁপা বেণী করে নিতে পারেন, বেশ ভালো দেখাবে এতে। আর ছোট চুল চাইলে পাঞ্চ ক্লিপ দিয়ে আটকে নিতে পারেন নাহলে খোলা হাওয়ায় উড়তে দিন সাধের চুলগুলোকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here