ঘরে বসে মুখের কালো দাগ দূর করার ৫টি উপায়

0
1289
ঘরে বসে প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরি করে নিন মুখের দাগ দূর করার মোক্ষম একটি ওষুধ।

যে মুখ সবার নজর কাড়ে তাতে কি কালো দাগ মানায়? উত্তরটা অবশ্যই না। তাছাড়া কালো দাগে ভরা চেহারাটা আয়নায় দেখতে আপনার নিজেরই বা কতটুকু ভালো লাগবে?

বয়সের সাথে সাথে চেহারায় তার ছাপ তো আসবেই। কিন্তু রাত জাগার কারণে চোখের নিচে কালি কিংবা মেছতা বা ব্রণের দাগ পুরো মুখের সৌন্দর্যকেই ঢেকে ফেলে।

মেকআপ লাগিয়ে দাগ লুকিয়ে ফেলা যায় কিন্তু দূর করা যায় না। কি দরকার কৃত্রিমতার আশ্য় নেয়ার? তারচেয়ে ঘরে বসে প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরি করে নিন মুখের দাগ দূর করার মোক্ষম একটি ওষুধ।

মুখে কালো দাগ কেন হয়ঃ

সমস্যা থাকলে তার সমাধানও থাকবে। তবে সমস্যা আর সমস্যা সমাধানের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরি করে সমস্যার কারণ। মুখের দাগ দূর করার আগে তাই জেনে নেয়া যাক দাগগুলো আসলো কোত্থেকে?

মুখে কালো দাগের প্রধান কারণ হল সূর্যের ক্ষতিকর কড়া রোদ। কোন রকমের সাবধানতা বা সানস্ক্রিন লোশন না মেখে সূর্যের আলোতে ঘন ঘন বের হলে তা ত্বকের খুব ক্ষতি করে। প্রথম দিকে এই ব্যাপারগুলো খুব বেহসি বোঝা না গেলেও একাধারে কয়েক বছর রোদে ঘোরাঘুরি করলে ত্বকের যে ড্যামেজ হয়েছে তা আপনি নিজেই টের পাবেন।

বিশেষ করে বয়স যখন ৪০ এর কোঠায় এসে পড়ে তখন চামড়া ধীরে ধীরে ঝুলে পড়তে থাকে। আপনার প্রকৃত বয়স বুঝিয়ে দিতে চেহারায় খেলে বেড়ায় রিংকেলরা। এসব কারণেই মুখে কালো দাগ দেখা যায়।

এবার জেনে নেয়া যাক এই কালো দাগ থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়।

প্রয়োগ করুন লেবুর রসঃ

রূপচর্চার হেন দিক নেই যেখানে লেবুর রস ব্যবহৃত হয় না, তো মুখের কালো দাগ তোলার ক্ষেত্রেই বা সে আর বাদ যাবে কেন?

লেবুর রসে প্রাকৃতিক অ্যাসিড থাকে আর এই অ্যাসিড মুখের কালো দাগ তুলতে সহায়তা করে। তুলার সাহায্যে মুখের কালো দাগগুলোতে দিনে দুইবার করে লেবুর রস লাগিয়ে ফেলুন। লেবুর রস আপনার মুখে স্যুট করছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখার জন্য শুরুতে মুখের ছোট কোন দাগে তা প্রয়োগ করে দেখতে পারেন। কাজ হলে পুরো মুখে তা লাগিয়ে ফেলুন।

ব্যবহার করুন অ্যালোভেরাঃ

বহুকাল আগে থেকেই ত্বকের নানা সমস্যার প্রতিষেধক হিসেবে মানুষ অ্যালোভেরা ব্যবহার করছে। ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানো থেকে শুরু করে দাগ দূর করা পর্যন্ত সব কাজেই পারদর্শী অ্যালোভেরা।

অ্যালোভেরার পাতা থেকে রস বের করে নিন। ভালো করে মুখ ধুয়ে অ্যালোভেরা জুস সরাসরি মুখে মেখে নিন। এবার মুখের কালো দাগগুলোতে ভালো করে এই রস ম্যাসেজ করে নিন। অ্যালোভেরা জেল দিয়ে ফেস মাস্কও বানিয়ে নিতে পারেন। দিনে দুই বার অ্যালোভেরা ব্যবহার করে ভালো ফল পেতে পারেন।

দাগবিহীন সুস্থ-সুন্দর ত্বকের জন্য প্রাকৃতিক অ্যাজেন্ট হিসেবে কাজ করে হলুদ।
দাগবিহীন সুস্থ-সুন্দর ত্বকের জন্য প্রাকৃতিক অ্যাজেন্ট হিসেবে কাজ করে হলুদ।

মেখে ফেলুন হলুদঃ

শুধু গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানের জন্যই নয় হলুদের কিন্তু আরও নানা রকমের ব্যবহার রয়েছে। দাগবিহীন সুস্থ-সুন্দর ত্বকের জন্য প্রাকৃতিক অ্যাজেন্ট হিসেবে কাজ করে হলুদ।

হলুদ বাটা, লেবুর রস ও দুধ মিশিয়ে একটি প্যাক বানিয়ে নিন। ঘন করে গুলানো এই প্যাকটি আক্রান্ত জায়গাগুলোতে ভালো করে ম্যাসেজ করে নিন। শুকানোর সময় দিন ও ১৫ মিনিট পরে উষ্ণ গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

মুধু, টকদৈ বা অলিভ অয়েলের সাথে মিশিয়েও হলুদ ব্যবহার করতে পারেন। দিনে একবারের বেশি এই প্যাক ব্যবহার না করাই ভালো। ২-৩ সপ্তাহের মধ্যে আপনার মুখের দাগ অনেকটাই কমে যাবে।

আলুর টুকরাও কিন্তু কম কার্যকরী নয়ঃ

ঘরে যদি আলু থাকে তবে মুখের কালো দাগ তোলা তো সময়ের ব্যাপার মাত্র। একটি আলু নিয়ে স্লাইস করে ফেলুন। আলুর স্লাইসগুলো গালে, কপালে, নাকে মোট কথা মুখের যেখানে যেখানে কালো দাগ রয়েছে সেখানে ঘষে নিন। চাইলে এর সাথে সমপরিমাণ ময়দা আর মধু মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিতে পারেন। মুখ, ঘাড় বা কনুই যেকোনো জায়গার কালো দাগ তুলতে এটি বেশ কার্যকরী।

সানস্ক্রিন লোশন না মেখে ঘর থেকে বের হবেন নাঃ

মুখের যেকোনো ধরণের কালো দাগের জন্য প্রধান আসামী সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি। ন্যুনতম এসপিএফ ৩০ সমৃদ্ধ সানস্ক্রিন লোশন বাইরে যাওয়ার ২০ মিনিট আগে মেখে নিন। এটি আপনার ত্বককে রক্ষা করার জন্য গার্ড হিসেবে কাজ করবে।

সবগুলো পদ্ধতি যে আপনাকে প্রয়োগ করতে হবে বা সবগুলো টিপস যে আপনার ত্বকের জন্য প্রযোজ্য হবে এমন কিন্তু কোন কথা নেই! মুখের অল্প একটু জায়গায় যেকোনো একটি পদ্ধতি প্রয়োগ করে দেখুন ভালো ফল পান কিনা। যদি কাজ হয় তো নিয়মিত সেটি ব্যবহার করুন আর কাজ না হলে অন্য পদ্ধতিতে চলে যান। আর চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করে নিতে ভুলবেন না যেন!

তথ্যসূত্রঃ টপ টেন হোম রেমেডিস

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here