ঘামাচি সমস্যার ঘরোয়া সমাধান

ঘামাচি সমস্যার ঘরোয়া সমাধান
চার চামচ মূলতানি মাটির সাথে গোলাপ জল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এবার ঘামাচি জায়গাগুলোয় লাগিয়ে রাখুন। তিন ঘন্টা পর ধুয়ে ফেলুন।

ফাহিম দেওয়ান  

বন্ধুরা মিলে আড্ডা দিচ্ছেন। কথা বলতে বলতে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় চুলকাচ্ছেন। অস্বস্তি হচ্ছে, কিন্তু কিছুই করার নেই। না পারছেন চলে যেতে, না পারছেন ঠিক মত বসতে। বিরক্তি ভাবটা সঙ্গে নিয়েই আড্ডা চালাচ্ছেন। এমন পরিস্থিতে আপনাকে নিয়ে বন্ধুরা ঠাট্টা করছেন। আসল ঘটনাটা কাওকে বলতেও পারছেন না। অসহায়ের মত বন্ধুদের বক্র বাক্য সহ্য করছেন। আর ভেতরে ভেতরে ঘামাচি থেকে রেহাই পাওয়ার কৌশল খুঁজছেন?

নিচের ঘরোয়া টোটকাগুলো জেনে নিন। নিয়ম করে চর্চা করুন, ঘামাচি থাকবে না।    

১। অ্যালোভেরার পাতা রস করে ঘামাচিতে লাগান। বাজারে অ্যালোভেরার জেলও পাবেন। সেটা গোসলের পর শরীরে মাখুন। ঘামাচি থেকে মুক্তি মিলবে।

২। চার চামচ মূলতানি মাটির সাথে গোলাপ জল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এবার ঘামাচি জায়গাগুলোয় লাগিয়ে রাখুন। তিন ঘন্টা পর ধুয়ে ফেলুন।

৩। এক কাপ পানিতে হাফ চামচ সোডা মেশান। মিশ্রণে পরিষ্কার কাপড় বা তুলা ভিজিয়ে ঘামাচির ওপর হালকা করে ঘষা দিন। এটা নিয়মিত করলে ঘামাচি কমবে।

৪। আলু চাকা-চাকা করে কাটুন। তারপর ঘামাচি আক্রান্ত অংশগুলোয় ঘষুন। ঘামাচির সাথে চুলকাচিও কমবে।

৫। তরমুজের খোসা ঘামাচিতে ঘষুন। ঘামাচি মরে যাবে। এমনটা একটানা কয়েক দিন করুন।

৬। কাবলি ছোলা বেটে নিন। পানিতে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। ঘামাচি ওঠা জায়গায় মাখুন। ১৫ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ঘামাচি থাকবে না।

৭। সকালে ও রাতে নিয়ম করে গোসল করুন। গোসল শেষে এক খন্ড বরফ নিয়ে ঘামাচি ওঠা জায়গাগুলোয় ঘষুন। আরাম পাবেন, ঘামাচিও মরবে।

৮। শশা বেটে পেস্ট বানান। ঘামাচি আক্রান্ত জায়গায় মাখুন। আধ ঘণ্টা রেখে ধুয়ে ফেলুন।

৯। পাকা পেঁপের পেস্ট করুন। মাখুন। ২০-২৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। ঘামাচি সারবে।

১০। নিম পাতা বটুন, অথবা গুড়ো করুন। বিশুদ্ধ পানি মিশিয়ে পেস্ট বানান। এই পেস্ট ঘামাচি আক্রান্ত জায়গায় মাখুন। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here