ট্রেনের গতি বাড়ল

গতি বাড়ল আন্তঃনগর ট্রেনের। কমলো গন্তব্যে পৌঁছার সময়।

নতুন সূচিতে ৬৮ আন্তঃনগর : ঢাকায় নীলসাগর

ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে সময় কমলো তূর্ণা ৫০ মি. প্রভাতী ও গোধূলী ১ ঘণ্টা ৫ মি. সুবর্ণ ২০ মি. ও সোনার বাংলা ৩০ মি.

গতি বাড়ল আন্তঃনগর ট্রেনের। কমলো গন্তব্যে পৌঁছার সময়। গতি বাড়ানোর কারণে সারাদেশের ৬৮টি ট্রেনের সময়সূচিতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। গতকাল বুধবার থেকে নতুন সূচিতে ট্রেন চলছে। নতুন সূচি অনুযায়ী ঢাকার সাথে আরও একটি ট্রেন যুক্ত হয়েছে। চিলাহাটি থেকে ঢাকা ক্যান্টনমেন্টগামী নীল সাগর এক্সপ্রেস এখন থেকে কমলাপুরে আসবে।

সোমবার বাদে সপ্তাহের প্রতিদিন ট্রেনটি সকাল ৮টায় চিলাহাটির উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়ে যাবে। রেলওয়ে সূত্র জানায়, পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের ৪২টি এবং পশ্চিমাঞ্চলের ২টি ট্রেনের পরিচালন সময় ১০ মিনিট থেকে সর্বোচ্চ ১ ঘণ্টা ৫ মিনিট পর্যন্ত কমে আনা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে রেলমন্ত্রী মোঃ মুজিবুল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে রেলওয়ের যাত্রী সেবার মান বৃদ্ধির জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। দিন দিন উন্নতির দিকে যাচ্ছে রেল। ট্রেনের গতি বৃদ্ধি তারই অংশ। এতে করে যাত্রীরা আগের চেয়ে কম সময়ে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারবেন। রেল সচিব মোঃ ফিরোজ সালাহউদ্দিন বলেছেন, লাকসাম থেকে আখাউড়া পর্যন্ত রেলপথে ডাবল লাইনের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। এ পথের কাজ সম্পন্ন হলে ঢাকা-চট্টগ্রাম পুরো রেলপথই ডাবল লাইনে উন্নীত হবে, তখন গন্তব্যে পৌঁছার সময় আরও কমে আসবে।

রেলওয়ের দুই অঞ্চলেই ট্রেনের গতিবেগ আগের চেয়ে বাড়ানো হয়েছে।
রেলওয়ের দুই অঞ্চলেই ট্রেনের গতিবেগ আগের চেয়ে বাড়ানো হয়েছে।

ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগ নিয়ে রেলওয়ের পূর্বাঞ্চল গঠিত। পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের অধীনে ৪৬টি আন্তঃনগর ট্রেন চলে। রাজশাহী,  রংপুর ও খুলনা বিভাগ নিয়ে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে। এতে চলে ২৪টি আন্তঃনগর ট্রেন। রেলওয়ে সূত্র জানায়, রেলওয়ের দুই অঞ্চলেই ট্রেনের গতিবেগ আগের চেয়ে বাড়ানো হয়েছে। এতে করে কমে গেছে গন্তব্যে পৌঁছার সময়। আগে পূর্বাঞ্চলে ট্রেনের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৭৫ কিলোমিটার। এখন তা বাড়িয়ে ৮০ করা হয়েছে। ব্রডগেজ ট্রেনের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৯৫ কিলোমিটার। এখন তা বাড়িয়ে ১শ’ কিলোমিটার করা হয়েছে। সারাদেশের মধ্যে ঈশ্বরদী থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিমপাড় এবং ঈশ্বরদী থেকে পার্বতীপুর পর্যন্ত ট্রেনের গতিবেগ সর্বোচ্চ ১শ’ কিলোমিটার করা হয়েছে।

নতুন সূচি অনুযায়ী ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের তূর্ণা এক্সপ্রেসের গন্তব্যে পৌঁছার সময় কমেছে ৫০ মিনিট। আগে ট্রেনটি ঢাকা থেকে ছেড়ে চট্টগ্রাম পৌঁছতে সময় নিতো ৭ ঘণ্টা ৪০ মিনিট। এখন পৌঁছাবে ৬ ঘণ্টা ৫০ মিনিটে।  ট্রেনটির ঢাকার কমলাপুর স্টেশন থেকে ছাড়ার সময় অপরিবর্তিত রয়েছে। এটি প্রতিদিন রাত সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রামের উদ্দেশে যাত্রা করে। চট্টগ্রামে পৌঁছায় সকাল ৭টা ১০ মিনিটে। এখন পৌঁছাবে সকাল ৬টা ২০ মিনিটে।

একইভাবে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী মহানগর, মহানগর প্রভাতী এবং মহানগর গোধূলী এক্সপ্রেসের গন্তব্যে পৌঁছার সময় ১ ঘণ্টা ৫ মিনিট করে কমছে। সিলেট-ঢাকা রেলপথের পারাবত এক্সপ্রেসের পরিচালন সময় কমেছে ৪০ মিনিট। ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে সুবর্ণ এক্সপ্রেসের ঢাকা থেকে ছাড়ার সময়ের কোন পরিবর্তন না হলেও ট্রেনটি চট্টগ্রামে পৌঁছাবে ২০ মিনিট আগে রাত ৮টা ১০ মিনিটে। দেশের দ্বিতীয় বিরতিহীন আন্তঃনগর  ট্রেন সোনার বাংলার সময় কমেছে ৩০ মিনিট। ট্রেনটি চট্টগ্রাম থেকে বিকাল ৫টায় ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছবে রাত ১০টা ১০ মিনিটে। এর আগে ১০টা ৪০ মিনিটে পৌঁছতো। আবার ঢাকা থেকে সকাল ৭টায় যাত্রা করে সোনার বাংলা চট্টগ্রামে পৌঁছাত দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে। গতকাল এটি চট্টগ্রামে পৌঁছে দুপুর ১২টা ১০ মিনিটে।

পশ্চিমাঞ্চলে আন্তঃনগর ট্রেনগুলোর মধ্যে নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের সময় ও ছাড়ার স্থান পাল্টানো হয়েছে। নীলসাগর গতকাল বুধবার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে সকাল ৮টায় ছেড়ে গেছে চিলাহাটির উদ্দেশ্যে। এর আগে এ ট্রেনটি ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট রেলওয়ে স্টেশন থেকে সকাল ৮টা ২৫ মিনিটে ছেড়ে যেত। রদবদল এসেছে খুলনা-সৈয়দপুর, রাজশাহী-নীলফামারী পথে চলাচলকারী ট্রেনের সময় ও ছাড়ার স্থানেও। এসব ট্রেন এখন চিলাহাটি পর্যন্ত চলবে।

সূত্রঃ নূরুল ইসলাম ,দৈনিক ইনকিলাব

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here