পুড়ে গেলে ঘরোয়া টোটকা

সঙ্গে সঙ্গে পানির কল খুলে নিচে ক্ষত জায়গাটি ধরতে হবে।

রান্না করতে গেলে হাত পুড়ে যাওয়া স্বাভাবিক বিষয়। এই অভিজ্ঞতা কম-বেশি সবারই আছে। যন্ত্রণা নির্মূলের জন্য বার্নল, বরফ, দাঁত মাজার পেস্টের সাহায্য নেই আমরা।

কিন্তু পোড়া ও পোড়ার দাগ দ্রুত নির্মূল করতে আরও কয়েকটি বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। যেমন—

ত্বকের যে অংশ পুড়ে গেছে, সেটি ফেলে রাখলে চলবে না। সঙ্গে সঙ্গে পানির কল খুলে নিচে ক্ষত জায়গাটি ধরতে হবে। ১০-১৫ মিনিট পানি দিয়ে ধুতে হবে। তবে অবশ্যই পানি যেন কনকনে ঠাণ্ডা না হয়।

জ

অনেকেই আছেন, পুড়ে গেলেই সবার প্রথমে বরফ ঘষতে শুরু করেন। এটা একেবারেই করা উচিত না। এতে পুড়ে যাওয়া ত্বকের টিস্যু বরাবরের মতো নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

ত্বকে অ্যালোভেরার উপকার অপরিসীম। পোড়ার দাগ নির্মূল করতেও এর বিকল্প খুঁজে পাওয়া মুশকিল। তাই পুড়ে যাওয়া ত্বকে অ্যালোভেরা জেল লাগানো যেতে পারে।

সদ্য পুড়ে যাওয়া ত্বক শুধুমাত্র সেদিনের জন্যই ব্যান্ডেজ কিংবা গজ দিয়ে মুড়িয়ে রাখতে হবে। আঠালো ধরনের ব্যান্ডেজ ব্যবহার না করাই ভালো। এতে টিস্যুর ক্ষতি হতে পারে। তুলো ব্যবহার করতে ভুললে চলবে না। বাঁধন যেন টাইট না হয়।

ব্যান্ডেজ খুলে, পুড়ে যাওয়া ত্বকে অ্যালোভেরার সঙ্গে মধু কিংবা কলার পেস্ট লাগিয়ে রাখলেও ভালো কাজ দেবে। এতে পোড়ার ক্ষত তাড়াতাড়ি নির্মূল হতে শুরু করবে।

বাঁধন খোলার পর যদি ফোসকা কিংবা ইনফেকশন হয়, দেরি না করে চিকিৎসকের কাছে চলে যেতে হবে। হতে পারে আগুন ত্বকের আরও ভিতরে ক্ষতি করেছে। সে ক্ষেত্রে ডাক্তারকে দেখিয়ে নেওয়াই হবে সবচেয়ে উপযুক্ত কাজ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here