বরখাস্ত হয়েও সফল যারা! (পর্ব ১)

0
158

চাকরির নাকি কোন নিশ্চয়তা নেই, এই আছে তো এই নেই! ধরা যাক, অফিসে এসে শুনতে পেলেন আপনার চাকরিটা চলে গিয়েছে। কি করবেন আপনি? রেগে যাবেন? কারণ জানতে চাইবেন? ভেঙে পড়বেন? নাকি মাথা নত করে বেরিয়ে যাবেন অফিস থেকে? শুধু আপনার সাথেই নয়, এমনটা এর আগে হয়ে গিয়েছে আরো অনেকের সাথেই। তাদের ভেতরে কেউ কেউ ভেঙে পড়েছেন। আর কেউ মাথা উঁচু করে বেছে নিয়েছেন নিজের পথ। এগিয়ে গিয়েছেন সামনে। আর এমনই চাকরি থেকে বরখাস্ত হওয়া সফল মানুষগুলোকে নিয়েই আজকের আয়োজনঃ

১. থমাস এডিসন

এডিসন তখন প্রেসে রাতের শিফটে দায়িত্ব পালন করতেন। তবে কাজের পাশাপাশি চালাতেন নিজের নানারকম বৈজ্ঞানিক গবেষনাও। সবটা ঠিকঠাকই চলছিল। তবে ১৮৬৭ সালের সেই রাতটার কথা একটু আলাদা। সেরাতে রাসায়নিক পরীক্ষা নিরীক্ষা করার সময় হঠাত্ করে হাত থেকে সালফিউরিক এসিড পড়ে যায় এডিসনের আর সেটা গড়িয়ে যায় বসের টেবিলের নীচ অব্দি। ফলাফল? পরদিন সকালেই তাড়িয়ে দেওয়া হয় তাকে কাজ থেকে। এর পরেও একদম ভেঙে না পড়ে নিজের গবেষনা চালিয়ে যান এডিসন আর ২ বছর পর নিজের প্রথম আবিষ্কারের পেটেন্ট নেন।thomas-edison

২. হিলারী ক্লিনটন

ওয়েলসলি কলেজ থেকে পড়াশোনা শেষ করে বেরোবার পর আলাস্কার ভালডেজে স্যামন ক্যানারিতে কাজ নেন হিলারী ক্লিনটন। বারবার তাকে মাছের প্রক্রিয়াজাতকরণের নানা জায়গা থেকে বের করে নতুন কোন জায়গায় বসানো হয়। কিন্তু কোনটাতেই টিকতে পারেননি তিনি। শেষ অব্দি মাছের গুনগত মান নিয়েও প্রশ্ন তোলেন হিলারী। ফলে পরদিন সকালেই বেরিয়ে আসতে হয় অফিস থেকে। আর তারপর? তারপরের গল্পটাতো সবারই জানা। আমেরিকার এই রাজনীতিবিদকে কে না চেনে?151222_dx_clinton-praise-jpg-crop-promo-xlarge2

৩. স্টিভ জবস

অ্যাপলের উদ্ভাবক স্টিভ জবসকেও নিজের প্রতিষ্ঠান থেকেই তাড়িয়ে দেওয়া হয়। তাও ৩০ বছর বয়সে। তবে হতাশ হয়ে বসে না থেকে নেক্সট নামে আরেকটি কম্পিউটার প্রতিষ্ঠান খোলেন জবস। যেটা পরবর্তীতে অ্যাপল কিনে নেয়। এবং স্টিভ জবসকেও আবার স্বাগতম জানায়। ফলাফল হিসেবে সবাই পায় পিক্সার, আইফোন, আইপড আর আইপ্যাডের মতন কিছু অসামান্য আবিষ্কার।steve_jobs_headshot_2010-crop

৪. ওয়াল্ট ডিজনি

ডিজনির প্রতিষ্ঠাতা ওয়াল্ট ডিজনিকে ১৯১৯ সালে তার তখনকার কর্মস্থল কানসাস সিটি স্টার নিউজপেপার থেকে বের করে দেওয়া হয়। কারণ হিসেবে বলা হয়েছিল যে তিনি যথেষ্ট কল্পনাশক্তি আর নতুন চিন্তার অধিকারী নন। তবে এটাই শেষ নয়। এরপর লাফ ও গ্রাম নামে একটি অ্যানিমেশন স্টুডিও খোলেন তিনি। যেটা একেবারেই দেউলিয়া হয়ে যায়। তবে গল্পটায় পরিবর্তন আসে যখন ডিজনি আর সেই সাথে মিকি মাউস আর ডিজনিল্যান্ডের মতন কিছু চমত্কার জিনিস উপহার দিয়ে ২৩ বার অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ড জিতে নেন এই মানুষটি।walt-disney

তথ্যসূত্রঃ মেন্টাল ফ্লোজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here