বিশ বা তিরিশের কোঠায় ব্যবসা শুরুর কথা ভাবছেন?

0
402
বিশ বা তিরিশের কোঠায় ব্যবসা শুরুর হাজারো সুবিধা মিলতে পারে

নতুন একটা ব্যবসা প্রতিষ্ঠার কথা ভাবছেন আপনি। এখনো তরুণ এবং কোনো অভিজ্ঞতাই নেই আপনার। এতে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হওয়ার দরকার নেই। বিশেষজ্ঞদের মতে, বিশ বা তিরিশের কোঠায় ব্যবসা শুরুর হাজারো সুবিধা মিলতে পারে। চলুন তবে দেখে নেয়া যাক কি সেই সুবিধাগুলো।

অভিজ্ঞতার বিকল্প রয়েছে: এমনটা সব সময় শুনে এসেছেন যে, অভিজ্ঞতা ছাড়া কোনো কাজেই সফল হওয়া যায় না। ব্যবসা বিষয়েও ন্যূনতম অভিজ্ঞতা প্রয়োজন। কিন্তু নতুন ব্যবসা দিতে অভিজ্ঞতারও বিকল্প রয়েছে। আপনি হয়তো ব্যবসা প্রতিষ্ঠার জন্য নতুন কোনো বিনিয়োগকারীকে আগ্রহী করতে চান। সে ক্ষেত্রে বিনিয়োগকারী আপনার অভিজ্ঞতা দেখতে চাইবেন। কিন্তু হতাশ হবেন না। ব্যবসা শুরুর আগে কিছু হোমওয়ার্ক নিজেই করতে পারেন। যে ধরনের ব্যবসা করতে চান তার সংশ্লিষ্ট কারো সঙ্গে আলাপ করতে পারেন। আবার তার সঙ্গে কিছুদিন থেকে কাজও শিখতে পারেন বিনা বেতনে। এ বিষয়ে তাকে রাজি করান। আবার বিনিয়োগকারীদের বোঝান, নতুন হলেও আপনার যথেষ্ট মেধা রয়েছে এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পড়াশোনা রয়েছে আপনার।

নিজস্ব বিনিয়োগ: নতুন ব্যবসা শুরু করতে হলে অর্থ লগ্নিকারী প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংক থেকে অর্থায়নের ব্যবস্থা করতেই পারেন। কিন্তু পরিচিত বিনিয়োগকারীদের সহায়তাও মিলতে পারে। কিন্তু নিজস্ব কিছু বিনিয়োগ লাগবেই। তা না হলে, শুধু তাদের অর্থকে সুব্যবস্থাপনায় আনা কঠিন হয়ে পড়বে। তা ছাড়া ব্যবসা শুরুর প্রথম কয়েক মাস বা বছরখানেক কোনো মুনাফা আসবে না। তাই ব্যবসা পরিচালনার জন্য বিভিন্ন বিল ও অন্যান্য খরচ কিভাবে চালাবেন, সেই চিন্তা আগে থেকেই করে নিতে হবে। এর পেছনে আগে থেকেই নিজস্ব পরিকল্পনা থাকবে।

তারুণ্য ঝুঁকি নেয়: ব্যবসায় এগোতে ঝুঁকি নিতে হয়। আর ঝুঁকি নিতে আগ্রহী থাকে তারুণ্য। তাই বলে ঝুঁকি নেয়ার বিষয়টি অবাস্তবিক হলে চলবে না। তাই এ বিষয়ে সাবধান থাকতে হবে।

ঠান্ডা মাথায় সময় নিয়ে পরিকল্পনা করুন
ঠান্ডা মাথায় সময় নিয়ে পরিকল্পনা করুন

অভিজ্ঞ এবং বড়দের চোখে আপনাকে গ্রহণযোগ্য করতে হলে ঝুঁকি নেয়ার মানসিকতা থাকতে হবে। কিন্তু চিন্তা-ভাবনা হবে বাস্তবসম্মত। ব্যবসা শুরুর পর থেকে আপনার পথে আসবে অনেক চ্যালেঞ্জ।

সময় রয়েছে যথেষ্ট: তরুণ বয়সেই আপনার প্রাণশক্তি অফুরান। আপনার হাতে রয়েছে অনেক সময়। কাজেই আপনি ঠান্ডা মাথায় সময় নিয়ে পরিকল্পনা করুন। ব্যবসাকে এগিয়ে নেয়ার যাবতীয় পথের সন্ধানে মস্তিষ্কে ঝড় তুলে ফেলুন। সামনে পুরো জীবন পড়ে রয়েছে আপনার। যদি ধৈর্য্য হারান তো অনেক ভুল হতে থাকবে। আর যদি যথেষ্ট সময় দেন, তবে নিজেকে ও ব্যবসাকে গুছিয়ে নিয়ে এগোতে পারবেন। সব সময় দীর্ঘমেয়াদি সফলতার দিকে দৃষ্টি রাখবেন।

এটাই শেষ নয়: উদ্যোক্তা হয়ে ওঠার ক্ষেত্রে আপনি নতুন যে যাত্রা শুরু করেছেন তা সহজে শেষ হবে না। অধিকাংশ ব্যবসা কিভাবে ব্যর্থ হয়, আপনি তা নিশ্চয়ই জানেন বা বোঝেন। কিন্তু তরুণ বয়সে এই বাস্তবতাগুলো কখনো কঠিন বলে মনে নাও হতে পারে। আপনি জানেন না ব্যবসাটা সফল নাকি ব্যর্থ হবে। কিংবা এটা থেকে বেরিয়ে আসবেন কিনা, অথবা এটি স্থিতিশীল পর্যায়ে গেলে অন্য কোনো ব্যবসা করবেন কিনা ইত্যাদি বিষয়ে ভাবতে হবে। আপনার বর্তমান ব্যবসাটি সফলতা দেখেছে মানেই যে আপনি এটাকে নিয়েই পড়ে থাকবেন এমন কোনো কথা নেই। এর সূত্র ধরে অন্য কোনো একটিকে নিয়ে এগিয়ে যেতে পারেন। অথবা তার আগে বর্তমানটিকে আরো বিস্তৃত করে যেতে পারেন। নিজের দুর্বলতা এবং দক্ষতা বুঝে নিন। যা দরকার তা শিখতে থাকুন। মনে রাখবেন, এটাই আপনার শেষ নয়। সামনে পুরোটাই বাকি।

তথ্যসূত্রঃ এন্টারপ্রিনিউয়ার ডট কম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here