ব্যায়াম বন্ধ রাখবেন কখন?জেনে নিন-

ফিট থাকতে নিয়মিত ওয়ার্কআউট করা জরুরি। এমনটাই আমাদের অনেকের ধারণা! তবে নিয়মিত ওয়ার্কআউটের থেকেও জরুরি আপনার শরীর এর ধকল নিতে তৈরি কি না। জেনে নিন, কোন কোন সময় ওয়ার্কআউট বন্ধ রাখবেন।

1 জ্বর হলে ওয়ার্কআউট করবেন না। জ্বরের ফলে আপনার বডি টেম্পারেচার এমনিতেই হাই থাকে।ওয়ার্কআউটের ফলে দেহের তাপমাত্রা বেড়ে যায়। ফলে হিতে বিপরীত হতে পারে।

2অতিরিক্ত পরিশ্রমের পর সঙ্গে সঙ্গেই ব্যায়াম করবেন না। এ সময় শরীর ক্লান্ত থাকে।ফলে খানিকটা বিশ্রাম নিন। তবে স্ট্রেচিং বা হাঁটার মতো হাল্কা ব্যায়াম করতে পারেন।

3চোট পেলে ওয়ার্কআউটের কথা ভুলে যান। এ সময় আপনার শরীর এমনিতেই দুর্বল থাকে।একান্তই যদি ওয়ার্কআউট করতে চান তবে যোগব্যায়াম বা প্রাণায়াম করুন যাতে পেশীতে চোট লাগার সম্ভাবনা নেই।

jeans-turn-ups-1024x622সারাদিন অ্যাক্টিভ থাকলেও আপনার প্রয়োজনীয় ওয়ার্কআউট হয়ে যায়।সাইক্লিং বা হাইকিংয়ের করার নেশা থাকলেও আলাদা করে ব্যায়াম করতে হয় না।

5প্রসবের পর বা কোনও বড়সড় অস্ত্রোপচারের দিনকয়েক পরই ব্যায়াম শুরু করবেন না।এ ক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে তবেই ওয়ার্কআউট করুন।

6হাঁটতে অসুবিধা হলে ওয়ার্কআউট বন্ধ রাখুন। এ সময় ওয়ার্কআউটে পেশীতে চোট লাগতে পারে। বরং বাড়িতে বসে হাল্কা স্ট্রেচিং করতে পারেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here