ভালবাসার আংটি বদল হল গভীর সমুদ্রের নীচে

এই অভিনব পদ্ধতিতে এই প্রথমবার ভারতে আংটি বদল ক্রিয়া সম্পন্ন হল৷

অনেকেই নিজের বিয়েকে স্মরণীয় করে রাখার জন্যে ইদানিংকালে প্যারাসুটে চেপে, বা জাহাজে করে সমুদ্রের মাঝখানে গিয়ে বা রিভারক্রুজে গিয়ে বিয়ে করেন। কিন্তু গতকাল কেরলের এক দম্পতি নিজেদের বিয়েকে চিরস্মরণীয় করে রাখার জন্যে সমুদ্রতলে বিয়ে করে সকলকে চমকে দিলেন। ভারতীয় পাত্র মহারাষ্ট্রের নিখিল এবং স্লোভাকিয়ার পাত্রী ইউনিকা কোভালম সৈকত থেকে কিছুটা দূরে আরব সাগরের তলায় গতকাল তাঁদের বিয়ে সারলেন।কথায় আছে “জল ই জীবন”৷ কিন্তু এবার সেই জলকেই রাজসাক্ষী করে আংটি বদল করলেন এই দম্পতি৷ সাক্ষী থাকল তাদের পরিজন, ম্যারেজ রেজিষ্টার ও কিছু বন্ধুবান্ধব এবং অবশ্যই অতল সমুদ্রের দেশ ৷

ঝিনুক দিয়ে তৈরি মালা একে অপরকে পরিয়ে দেন।
ঝিনুক দিয়ে তৈরি মালা একে অপরকে পরিয়ে দেন।

জলের তলায় তারা আংটি বদল করে, ঝিনুক দিয়ে তৈরি মালা একে অপরকে পরিয়ে দেন। তারপর একে অপরকে চুম্বন করে ম্যারেজ রেজিষ্টারের সাহায্যে সম্পূর্ণ করলেন। সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় তারা লিখিত প্লাকার্ডের মাধ্যমে এই পুরো নিয়মবিধি পূরন করেছেন৷

জানা যায়, ইউনিকা ও নিখিলের প্রথম আলাপ হয় আগের বছর কোভালাম  বিচে৷ যখন ইউনিকা ঘুরতে আসে এখানে প্রথমবার৷বিশেষ সূত্রের খবর অনুযায়ী, এই অভিনব পদ্ধতিতে এই প্রথমবার ভারতে আংটি বদল ক্রিয়া সম্পন্ন হল৷

ইউনিকা ও নিখিলের প্রথম আলাপ হয় আগের বছর কোভালাম বিচে৷
ইউনিকা ও নিখিলের প্রথম আলাপ হয় আগের বছর কোভালাম বিচে৷

জলের তলায় আংটি বদল মানে ভাববেন না যে জাঁক-জমক কিছু কম ছিল! রীতিমতো বিধি মেনেই হল সবকিছু৷ কনে গাউন এবং বর ওয়ের্ষ্টান পোষাক পরে সমস্ত পরিজনদের নিয়ে পৌঁছে গেলেন ভেনুতে৷ এখানেই শেষ নয় সেখানে তাদের জন্য পাম গাছের পাতা-ফুল,বিভিন্ন প্রবাল ও অন্যান্য প্রাকৃতিক দ্রব্য দিয়ে তৈরি হয়েছিল একটি সুসজ্জিত মণ্ডপ ৷ সেখানেই দাঁড়িয়ে নিজেদের বিয়ের না না অনুষ্ঠান সম্পন্ন করেন দম্পতি। পাত্রী যদিও প্রথমে কিছুটা ভীত ছিলেন জলের তলায় নামতে, তবে পুরো অনুষ্ঠান ঠিকঠাক হওয়ায় সকলেই খুশি। মোট এক ঘন্টা লাগে বিয়ের এই অনুষ্ঠানটি সম্পন্ন হতে।

প্রজাতন্ত্র দিবসের সকালে কোভালমের মনোরম পরিবেশে জলের তলায় সম্পন্ন হয় এই বিয়ের অনুষ্ঠানটি। ইদানিং কালে এই সৈকত বিয়ের জন্যে এক অতি আকর্ষণীয় ডেস্টিনেশনে পরিণত হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here