যে কলম চিরদিন লিখবে

‘ফরএভার পিনিনফারিনা অ্যারো’ নামের এ কলম লেখার জগতে এক যুগান্তকারী আবিষ্কার।

দরকারি কাজের সময় কলমের কালি ফুরিয়ে ঝামেলায় পড়েনি এমন মানুষ খুব কমই আছে। এর পর কলম জোগাড়ের হেনস্তার ফিরিস্তি আর না-ই দিলাম। এর বদলে আপনাদের একটি আনন্দের সংবাদ দেই। জীবনে কখনো কালি ফুরাবে না এমন একটি কলম বের হয়েছে ইতালিতে। কলমটি একসঙ্গে তৈরি করেছে ইতালীয় কোম্পানি ন্যাপকিন ও ডিজাইন হাউজ পিনিনফারিনা। ‘ফরএভার পিনিনফারিনা অ্যারো’ নামের এ কলম লেখার জগতে এক যুগান্তকারী আবিষ্কার। কেননা স্টাইলিশ ও আধুনিক এই কলম দিয়ে লেখার জন্য কোনো কালির দরকার হয় না।

কালিছাড়া কলম দিয়ে লেখা হয় কীভাবে, শুনে হয়তো অবাক হচ্ছেন। আসলে এই কলমের নিবটি ইথারগ্রাফ দিয়ে তৈরি, যা গ্রাফাইট ও কালিমুক্ত এক ধরনের শঙ্কর ধাতু; এটি ন্যাপকিন কোম্পানিরই পেটেন্ট করা। এই ধাতু দিয়ে কীভাবে লেখা হয়, সেটা কোম্পানিটি পুরোপুরি ফাঁস না করলেও এটুকু জানা যায় যে পদ্ধতিটি অক্সিডাইজেশনের মূলনীতি মেনে কাজ করে। অর্থাৎ এই ধাতুর সংস্পর্শে এলে কাগজ বিক্রিয়া করে কালো হয়ে যায়। কলমটির বডি অ্যারোস্পেস অ্যালুমিনিয়ামের তৈরি, যার মাঝের অংশটি নীল রঙের। এর মাঝখানটি ফাঁপা ও এমনভাবে বাঁকানো, যা দেখলে ইনফিনিটি বা অনন্তের চিহ্নের মতো মনে হয়। কলমটির নকশা তৈরিতে আসলে চাইনিজ মিথলজির ইন অ্যান্ড ইয়াংয়ের থেকে ধারণা নেয়া হয়েছে, যাতে বলা আছে মানুষের অনন্ত নিয়ে চিন্তা করা উচিত। হাতে তৈরি এই কলমগুলো রাখার বাক্সটিও বেশ তাক লাগানো, যা তৈরিতে ব্যবহার করা হয়েছে কংক্রিট। ফরএভার পিনিনফারিনা অ্যারো পাওয়া যাচ্ছে ইতালির ছয় শতাধিক দোকানে। ইতালির বাইরে ২০টি দেশে বিক্রি হচ্ছে এই কলম আর পাশাপাশি পিনিনফারিনার অনলাইন দোকানেও এটি পাওয়া যাচ্ছে। কলমটি সংগ্রহে খরচ করতে হবে ১২০ ইউরো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here