শরীরকে সুস্থ রাখতে গোসলের পানির সাথে ব্যবহার করবেন যে ১০টি উপাদান

0
720
গোসলকে আরো বেশি কার্যকর করে তুলতে ব্যবহার করুন কিছু উপাদান

শরীরকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও চাঙা রাখতে অপরিহার্য জিনিস গোসল। গোসল শুধু শরীর পরিষ্কার করে তা কিন্তু নয়, এটি দেহের ক্লান্তি দূর করে আপনাকে সতেজ করে তোলে। নিজেকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন এবং সতেজ থাকতে গোসলের প্রয়োজন। এই গোসলকে আরো বেশি কার্যকর করে তুলতে ব্যবহার করুন কিছু উপাদান। এসব উপাদান আপনার ত্বককে করবে সুন্দর,নরম এবং কোমল।   

১। তেল

নরম কোমল ত্বক পেতে চাইলে গোসলের পানিতে তেল মিশিয়ে নিন। এই তেল ত্বকের কোলাজেন ঠিক রাখবে। শুধু তাই নয় এটি ত্বকের রুক্ষতাও দূর করে দেবে। গোসলের পানিতে নারকেল তেল বা অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন।

২। লবণ

লবণ ত্বক এক্সফলিয়েট করতে সাহায্য করে। এটি স্ট্রেস কমিয়ে মনকে শান্ত করে তোলে। বাথ সল্ট বা সি সল্ট বাজারে কিনতে পাওয়া যায়। এটি গোসলের পানিতে মেশান। তারপর সেটি আলতো হাতে শরীরে ম্যাসেজ করুন। ত্বকের বলিরেখা এবং কুঞ্চন প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে এটি।

৩। দুধ

ত্বক হাইড্রেটেড করে নরম কোমল করে তুলতে দুধের ভূমিকা অপরিসীম। এতে থাকা ল্যাকটিক অ্যাসিড ত্বকের কালোভাব দূর করে দেয়। কুসুম গরম দুধ পানিতে মেশান। এই পানিতে ১৫ মিনিট শরীর ভিজিয়ে রাখুন।

৪। মধু

রুক্ষ ত্বকের জন্য মধু বেশ কার্যকর। গোসলের পানিতে দুই কাপ মধু মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটিতে হাত-পা ১৫ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন।

ত্বক হাইড্রেটেড করে নরম কোমল করে তুলতে দুধের ভূমিকা অপরিসীম
ত্বক হাইড্রেটেড করে নরম কোমল করে তুলতে দুধের ভূমিকা অপরিসীম

৫। টি ব্যাগ

গোসলের পানিতে ৩-৫টি টি ব্যাগ অথবা ১-২ কাপ হার্বাল চা যেমন গ্রিন টি, পেপারমেন্ট চা বা ক্যামেলিয়া চা মেশান। এটি ত্বক পরিষ্কার করে এবং চুলকেও করে তোলে সিল্কি এবং ঝলমলে।

৬। লেবু

৫-৬টি লেবুর টকরো বা ১/২ কাপ লেবুর রস পানিতে মিশিয়ে নিন। এটি হাত, পায়ে ব্যবহার করুন। লেবুর ত্বকের রোমকূপ সংকুচিত করে, ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে দেয়।

৭। বেকিং সোডা

ত্বকের চুলকানি দূর করতে বেকিং সোডা সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি। এটি ত্বক থেকে মৃত কোষ দূর করে জ্বালাপোড়া রোধ করে।

৮। অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার

এক কাপ অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার গোসলের পানিতে মিশিয়ে নিন। এতে শরীর ৫-১০ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন। শরীর থেকে টক্সিক পর্দাথ দূর করে দেওয়ার পাশাপাশি রোদে পোড়া দাগ দূর করতে সাহায্য করে অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার।

৯। ওটমিল

যাদের অ্যালার্জির সমস্যা রয়েছে তাদের জন্য গোসলের পানিতে ওটমিল ট্রিটমেন্ট হিসেবে কাজ করে। এছাড়া ড্রাই স্কিন, চুলকানি বা চিকেন পক্স জাতীয় যেকোনো ত্বকের সমস্যা নিরাময়েও ভাল প্রতিষেধক ওটমিল। এক বালতি পানিতে এক কাপ ওটমিল মিশিয়ে ১০-১৫ মিনিট ধরে ভাল করে পুরো শরীর ভিজিয়ে গোসল করুন।

১০। আদা

শুনতে অবাক লাগলেও গোসলের পানির সাথে আদার সাথে আদার সংমিশ্রণ ঘাম, ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া থেকে আপনাকে মুক্তি দিতে পারে। শীতের দিনে শরীরের তাপমাত্রা বাড়াতেও বেশ কার্যকরী জিনিস আদা।

তথ্যসূত্রঃ দ্য ইন্ডিয়ান স্পট

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here