শৌখিন ঘরদোর স্বল্প খরচে

অন্দরমহলে শিল্পিত আমেজ আনতে কে না চায়। তবে এ কাজে বাদ সাধে কাঁড়ি কাঁড়ি অর্থ ব্যয়। এক্ষেত্রে একটুখানি সৃষ্টিশীলতার পরশ বুলিয়ে অনেক অর্থ ব্যয় না করেও কিন্তু দারুণ সব নকশা দিয়ে সাজিয়ে তোলা যায় অন্দরের ভেতরটাকে। কীভাবে, দেখে নিন নিচের সাতটি টিপস—

images

দেয়ালে রাখুন বিখ্যাত কোনো চিত্রকর্ম

অবাক হচ্ছেন, ভাবছেন বিখ্যাত কোনো শিল্পীর শিল্পকর্ম দিয়ে দেয়াল সাজানো মানেই তো বিশাল অংকের অর্থ ব্যয়! আপনি যদি ভীষণ রকম এসএম সুলতানের ভক্ত হন, তাহলে এ শিল্পীর ভালো মানের একটি চিত্রকর্মের প্রিন্ট সংগ্রহ করে ফ্রেমে বাঁধিয়ে রাখুন। এখন কিন্তু দেয়ালে চিত্রকর্মের সঙ্গেই ঠাঁই করে নিচ্ছে ফ্রেমে বাঁধানো নানা ধরনের উক্তি। ড্রইংরুমে থাকতেই পারে আপনার প্রিয় লেখকের তেমন কোনো উক্তি। কিংবা লিভিং রুমের বড় দেয়ালজুড়ে বাঁধানো থাকতে পারে জীবনানন্দ দাসের ‘সেই দিন এই মাঠ’, পাবলো নেরুদার ‘টু নাইট আই ক্যান রাইট দ্য স্যাডেস্ট লাইন’ কিংবা বোদলেয়ারের প্রিয় উক্তি। এছাড়া কোনো শিল্পীর বিখ্যাত একটি ছবির প্রিন্ট সংগ্রহ করে তাকে নিয়ে সিগনেচার করিয়ে নিতে পারেন। আপনার রুচির প্রশংসা করবেন আগত অতিথিরা।

simple-family-picture-wall-with-painting-design

ফটোওয়াল

ঘরের কোণে, সাইড টেবিলে কিংবা দেয়ালে বিচ্ছিন্নভাবে আমরা কম-বেশি নিজেদের ছবি বাঁধিয়ে রাখতে পছন্দ করি। এক্ষত্রে ঘরময় প্রিয় মুহূর্তের ক্যামেরাবন্দি ছবিগুলো বিচ্ছিন্নভাবে না রেখে, একটি ফটোওয়াল তৈরি করুন। বিয়ের ছবি থেকে শুরু করে সেখানে থাকতে পারে জন্মদিন থেকে শুরু করে বেড়ানো ছবি। এক্ষেত্রে সব ফ্রেম একই মাপের না রেখে ভিন্ন ভিন্ন আকারে করলে দারুণ লাগবে। ইন্টারনেটে ঢুঁ মারলে দারুণ কিছু কোলাজ খুঁজে পাবেন। কেবল ফ্রেমের আকার নয়, বাড়তি সৌন্দর্য আনতে ফ্রেমের ধরনেরও পরিবর্তন আনতে পারেন। এমন ছবিময় দেয়াল তৈরি করতে পারেন সিঁড়িঘর, স্টাডিরুম কিংবা বেডরুমেরও।

ভিন্ন রকম আভিজাত্য

ঘরে অতিথি এলে তাকে একটু বেশি যত্ন করার অভ্যাস আমাদের চিরায়ত। দামি কফি সেট, অ্যান্টিক কাঁসার প্লেট কিংবা নকশা করা চীনা মাটির নান্দনিক চায়ের কাপ— এসব তো সাজানোই থাকে আমাদের শোকেসে। তবে কেবল শোকেসবন্দি করে নয়, এ উপাদানগুলো ব্যবহার করতে পারেন অন্দরের সাজসজ্জায়। অতিথি এলে তাদের আপ্যায়নে যেমন এগুলো ব্যবহার করা যায়, তেমন অন্য সময়ে সাজিয়ে রাখতে পারেন শোপিস হিসেবে।

বেড়াতে গিয়ে

বছরে এক কিংবা দুবার ঘুরতে বের হন না, এমন ব্যক্তির সংখ্যা হাতে গোনা। নতুন জায়গায় গিয়ে সেখানের সংস্কৃতি দেখতে দেখতে সংগ্রহ করতে পারেন নানা ধরনের শোপিস। এর মধ্যে থাকতে পারে পোস্টালকার্ড, নকশা করা আয়না, বিভিন্ন আকারের গ্লাস, মূর্তি, ফটোফ্রেম। দেয়াল, আলমারি আর লং টেবিলের ওপর সাজিয়ে রাখতে পারেন এগুলোর ধরন অনুযায়ী।

ঐতিহ্য

অন্দরসজ্জায় যদি আধুনিকতার সঙ্গে ঐতিহ্যের স্পর্শ রাখতে চান, তাহলে আপনার তালিকায় রাখতে পারেন নকশিকাঁথা, মোগল মিনিয়েচার কিংবা উপজাতীয় লোকচিত্রকর্ম। আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হচ্ছে, এসব আয়োজনের পেছনে খুব বেশি অর্থ ব্যয় হবে না আপনার। অল্প খরচেই মনের মতো করে সাজিয়ে নিতে পারেন অন্দরের ভেতরটা।

yellow-wallpaper-living-room-300x224

 বই

আপনি যদি পড়ুয়া স্বভাবের হন, তাহলে বুক শেলফভর্তি বই থাকবে, তবে কেবল শেলফে না রেখে ভিন্নভাবে কয়েকটি বই রেখে দিন ঘরের কোনো কফি টেবিলে।  আকারে বড় সাইজের বই আর এর সঙ্গে জুড়ে দেয়া দারুণ প্রচ্ছদটিই ইন্টেরিয়র অলঙ্কার হয়ে কাজ করবে আপনার অন্দরে।

e0a697e0a78be0a69be0a6bee0a6a8e0a78b-e0a6aae0a6b0e0a6bfe0a6aae0a6bee0a69fe0a6bf-e0a6ace0a787e0a6a1e0a6b0e0a781e0a6ae

 

 ছোট শৌখিন আসবাব

বড় আকারের মাস্টার বেড কিংবা দামি সোফা কেনার সামর্থ্য নেই! কিংবা এর জন্য অনেক অর্থও ব্যয় করতে চান না। এক্ষত্রে আপনার সংসারটি যদি ছোট হয়, তাহলে শোয়ার ঘরে পুরনো অ্যান্টিক বেড আর বসার ঘরটিতে রাখতে পারেন পুরনো নকশার কয়েকটি চেয়ার। ঘরের এক কোনায় ছোট একটি সাইট টেবিল দিয়ে সেখানেই রেখে দিন এ চেয়ারগুলো। পুরনো দিনের আসবাব, দেয়ালজুড়ে উজ্জ্বল রঙ এবং একটি সুন্দর চিত্রকর্ম— স্বল্প খরচে শৌখিনতায় আর কি চাই!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here