শ্যাম্পু না করলেও চুল ভালো থাকবে

শ্যাম্পু না করলেও চুল ভালো থাকবে
শ্যাম্পুবিরোধী ‘নো পু’ আন্দোলনকারীদের বক্তব্য, শ্যাম্পু চুলের ক্ষতিই বেশি করে। শুধু চুল নয়, এটা ত্বকেরও ক্ষতি করে।

আর্টস্টাইল কিউরেটর   

পৃথিবীর অনেক বিখ্যাত মানুষ তাঁদের জীবন থেকে প্রশাধণী হিসেবে শ্যাম্পুকে চিরতরে ‘না’ বলে দিয়েছেন। শুধু তা-ই নয়, শ্যাম্পুবিরোধী ভাবনাকে প্রতিষ্ঠিত করতে তাঁরা ‘নো পু’ নামে এক আন্দোলনও শুরু করেছেন। সঙ্গীতশিল্পী অ্যাডেলের মতো ব্যক্তিত্বও এ আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত।

সবাই সাধারণত চুলের স্বাস্থ্যরক্ষার জন্য শ্যাম্পু ব্যবহার করেন। চুল নিয়ে সৃষ্টি হওয়া সকল সমস্যার সমাধান শুরুই হয় শ্যাম্পু সংক্রান্ত বিষয় দিয়ে। হেয়ার এক্সপার্ট, নাপিত এমনকি সাধারণ যে কেউ কারো চুলের সমস্যার কথা শুনলেই বলেন, ‘শ্যাম্পু বদলান’। কিন্তু বর্তমান পৃথিবীতে এমনও লোক আছেন, যারা শ্যাম্পু ব্যবহারের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। এখন প্রশ্ন হলো, শ্যাম্পু ব্যবহার না করলে কী কোনো ক্ষতি হবে? কী হতে পারে?

শ্যাম্পুবিরোধী ‘নো পু’ আন্দোলনকারীদের বক্তব্য, শ্যাম্পুর উপদানগুলো চুলের স্বাস্থ্যের জন্য কখনোই ভালো নয়। তাঁরা এও বলছেন, শ্যাম্পু চুলের ক্ষতিই বেশি করে। শুধু চুল নয়, এটা ত্বকেরও ক্ষতি করে। আন্দোলনকারীরা তাই প্রসাধনীর তালিকা থেকে শ্যাম্পুকে একেবারেই ফেলে দিয়েছেন। এবং এ কাজে অন্যদেরকেও উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করছেন। তাঁরা সাদা-স্বচ্ছ পানিতে চুল ধুয়ে মাসের পর সাস কাটিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। জানিয়েছেন, ‘এতে চুলের কোনো ক্ষতিই হবে না। চুল তাঁর স্বচ্ছন্দ মত বাড়তে পারবে।

শ্যাম্পু না করলেও চুল ভালো থাকবে
শ্যাম্পুবিরোধী আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত আছেন সঙ্গীতশিল্পী অ্যাডেল। শ্যাম্পু না করেও তাঁর ঝরঝরে চুল।  

‘নো পু’ আন্দোলনকারীরা বলছেন, আমাদের মাথা থেকে নিঃসৃত প্রাকৃতিক তেল চুলকে স্বাভাবিক ছন্দে বাড়তে সাহায্য করে। কেমিক্যালযুক্ত শ্যাম্পু সেই বৃদ্ধিকে বাধা দেয়। এমনকি এই স্বাভাবিকতা চুল পড়াও রোধ করে। বারবার শ্যাম্পু করলে মাথার ত্বক থেকে ন্যাচারাল অয়েলের নিঃসরণ কমতে থাকে। পাশাপাশি চুলের আর্দ্রতাও কমে যায়।

‘নো পু’ আন্দোলনের মূল বক্তব্য, এক বছর কেন সারা জীবন শ্যাম্পু না করলেও কিছু যায় আসে না। চুল ঠিকই সতেজ থাকবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here