সাজে আয়না, আয়নায় সাজ

সাজে আয়না, আয়নায় সাজ
কোনো ঘরের একটা দেয়ালজুড়ে আয়না থাকলে ঘরটাকে বেশ বড় দেখায়। আবার কোনো ঘরের দেয়ালে নানান আকৃতির আয়না ব্যবহার করা হলে দেয়ালটাকে বেশ অন্যরকম লাগে।

আর্টস্টাইল কিউরেটর  

আয়না ছাড়া কি আর সাজ হয়? সাজের এক অপরিহার্য অংশ আয়না। তবে নিজেকে দেখতে আয়না ব্যবহারের পাশাপাশি আজকাল বাড়ি-ঘর সাজাতেও কাজে লাগছে আয়না।
রেডিয়েন্ট ইনস্টিটিউট অব ডিজাইনের প্রধান গুলসান নাসরীন চৌধুরী বলেন, ‘কোনো ঘরের একটা দেয়ালজুড়ে আয়না থাকলে ঘরটাকে বেশ বড় দেখায়। আবার কোনো ঘরের দেয়ালে নানান আকৃতির আয়না ব্যবহার করা হলে দেয়ালটাকে বেশ অন্যরকম লাগে।’
কাঠ ও বেতের পাশাপাশি এখন নানা উপাদানে তৈরি হচ্ছে আয়নার ফ্রেম। ঢাকার গুলশান-২ ডিসিসি মার্কেট ঘুরে পাওয়া গেল বাহারি ডিজাইনের আয়না। এখানে আয়নার ফ্রেমগুলোও বেশ বৈচিত্র্যময়। কোনো কোনো আয়নায় ফ্রেমজুড়ে আবার বসানো হয়েছে ছোট ছোট বেশ কয়েকটি আয়না।
বাড়ির কোন জায়গায় কীভাবে আয়না ব্যবহার করা যেতে পারে, সে সম্পর্কে আরও জানালেন গুলসান নাসরীন চৌধুরী।

বাড়িতে ঢোকার সময় অতিথি যেখানে দাঁড়িয়ে কলবেল চাপেন, ঠিক সেখানটাতে রাখতে পারেন সুন্দর একটি আয়না। এতে বাড়িতে ঢোকার আগেই নিজেকে কেমন দেখাচ্ছে, তা দেখে নেওয়ার সুযোগ থাকবে। বাড়ির প্রবেশপথটিকে গাছ, শোপিস আর মোমবাতি দিয়ে সাজানো যেতে পারে। একটি আয়নাকে কেন্দ্র করেই এসব উপকরণ সাজিয়ে নিন।
ত্রিকোণ, চৌকো, লম্বা, গোল এমন নানা আকৃতির ছোট-বড় বেশ কয়েকটি আয়না দিয়ে সাজাতে পারেন আপনার ঘরের একটি দেয়ালগুলো। এসব আয়নার কোনোটিতে হয়তো আপনার চোখ দেখা যাবে, কোনোটিতে হয়তো দেখা যাবে নাক! শিশুরা দারুণ আনন্দ পাবে এমন দেয়াল দেখে। বাড়ি তৈরির সময় দেয়ালে প্লাস্টার করার সময়ই লাগিয়ে নিতে পারেন এসব আয়না। এ ছাড়া বাড়ি তৈরির পর আইকা আঠার সাহায্যেও লাগানো যেতে পারে এসব আয়না। আয়নাগুলোর ফাঁকে ফাঁকে রং করে সাজিয়ে নিতে পারেন দেয়ালটি।

সাজে আয়না, আয়নায় সাজ
ত্রিকোণ, চৌকো, লম্বা, গোল এমন নানা আকৃতির ছোট-বড় বেশ কয়েকটি আয়না দিয়ে সাজাতে পারেন আপনার ঘরের দেয়ালগুলো।

ফলস সিলিং তৈরিতে অনেক সময় কাচ ব্যবহার করা হয়। চাইলে সেখানে আয়নাও ব্যবহার করতে পারেন। অলংকারের দোকানের ছাদ আর একপাশের দেয়ালে আয়না লাগানো থাকে। এতে আলো প্রতিফলিত হয়ে পুরো দোকানটিকে সুন্দর আর বড় দেখায়। বাড়িতেও এভাবে আয়না ব্যবহার করা যেতে পারে।

শোয়ার ঘরের একপাশের দেয়ালে আয়না লাগিয়ে নিলে সেখানে ড্রেসিং টেবিল না রাখলেও চলে। সাজগোজের সব উপকরণ আয়নার পাশেই একটি র্যাকে রাখা যেতে পারে। এতে করে ড্রেসিং টেবিলের জন্য আলাদা জায়গা লাগবে না। ফলে ঘরটিতে অন্য আসবাব রাখার জন্য যথেষ্ট জায়গা পাওয়া যাবে।

*শিশুদের ঘরের দেয়ালে আয়না লাগাতে চাইলে তাদের পছন্দমতো কার্টুন চরিত্রের ডিজাইনে তৈরি ফ্রেম ব্যবহার করতে পারেন। এ ছাড়া রঙিন ফ্রেমে বাঁধানো কোনো আয়নাও কিনতে পারেন শিশুর জন্য।

*লিভিং রুম বা ডাইনিং রুমেও লাগানো যেতে পারে কারুকার্যময় আয়না।

কিনতে চাইলে
আড়ং, যাত্রাসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে পাবেন বিভিন্ন ডিজাইনের দারুণ সব আয়না। ঢাকার গুলশান ডিসিসি মার্কেট আর নিউমার্কেটেও মিলবে আয়নার খোঁজ। যেসব দোকানে শুধু শিশুদের সামগ্রী কিনতে পাওয়া যায়, সেসব দোকানেও পেয়ে যেতে পারেন কার্টুন চরিত্রের ফ্রেমে বাঁধানো আয়না।
এসব স্থান ছাড়াও বিভিন্ন আয়নার দোকানে খোঁজ নিয়ে দেখতে পারেন। এমন দোকান থেকে পছন্দসই নকশায় আয়নাও বানিয়ে নিতে পারেন।
আকার ও ডিজাইনভেদে এসব আয়না ৫০০ থেকে ২৪ হাজার টাকার মধ্যেই কিনতে পাবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here