সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বাড়িয়ে দিচ্ছে প্রতারণার প্রবণতা?

0
273
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের দ্বারা মানুষকে প্রতারিত করার প্রবণতাও বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

যখন থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জোয়ার এল, তখন থেকেই মানুষের কাছাকাছি আসার পাশাপাশি সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির বন্ধন দৃঢ় হয়েছে অনেকটাই। তবে আলোর বিপরীতে যেমন অন্ধকার থাকে, তেমনি এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের দ্বারা মানুষকে প্রতারিত করার প্রবণতাও বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

“বিশ্বাসঘাতকতার আগুনে ঘি ঢালছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো”, ডেট্রোয়েট ফ্রি প্রেসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন জয়েস মারটার। তিনি একজন সাইকোথেরাপিস্ট এবং শিকাগো কেন্দ্রিক কাউন্সিলিং সেন্টারগুলোর পরিচালক।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিস্তারের আগ পর্যন্ত এ ধরণের প্রতারণার বিষয়টি ভাবাই যেত না। “ট্রু লাভ” বা সত্যিকার ভালবাসার কথাটি এখন অনেকটাই কাগজে কলামে সীমাবদ্ধ। একটু ভেবে বলুন তো, ফেসবুক বা টুইটারের এত প্রচলনের আগে একটি ম্যাসেজ থেকেই যে শুরু হতে পারে ভালবাসার সম্পর্ক তা কি কেউ ভেবেও দেখতে পেরেছিল? গবেষণায় উঠে এসেছে, বর্তমানে কিছু মানুষ তো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করেই প্রেম করার উদ্দেশ্যে!

আপনার সঙ্গীর বিশ্বস্ততা যাচাই করার জায়গা অনেক কম বলে বিবাহিত বা অবিবাহিত দম্পতিদের মধ্যে সন্দেহ করার প্রবণতা বেড়ে যাচ্ছে অনেকাংশে
আপনার সঙ্গীর বিশ্বস্ততা যাচাই করার জায়গা অনেক কম বলে বিবাহিত বা অবিবাহিত দম্পতিদের মধ্যে সন্দেহ করার প্রবণতা বেড়ে যাচ্ছে অনেকাংশে

কার সাথে ভালোবাসার সম্পর্কে জড়িয়ে তার কাছ থেকে অর্থ আত্মসাৎ করা বা কাউকে মানসিকভাবে দুর্বল করে তার কাছ থেকে নিজের স্বার্থ হাসিল করার উদ্দেশ্য নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আসেন অনেকে। এক্ষেত্রে তাদেরকে বেশ ভালই সাপোর্ট দিচ্ছে ফেসবুক বা টুইটারও। ক্যালিফোর্নিয়ার সোশ্যাল সাইকোলজি বিভাগের অধ্যাপক বেঞ্জামিন কারনি এমনটাই জানালেন।

কাউকে ঠকানোর জয় কষ্ট করে খুঁজে বের করার দরকার পড়ছে না, তার পিছনে ঘুরে ঘুরে টাকা নষ্ট করতে হচ্ছে না। ফেসবুকে একটা ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট করার মাধ্যমেই খুলে যাচ্ছে প্রতারণার পথ। আপনি চাইলেই ফ্লারট করতে পারেন যে কার সাথে, এমনকি অপর পক্ষ থেকে সাড়া পেলে জড়িয়ে পরতে পারেন যৌন সম্পর্কেও, বর্তমান যুগে সেক্স চ্যাটের প্রচলন ভয়ংকরভাবে বেড়ে চলেছে।

এছাড়া আপনার সঙ্গীর বিশ্বস্ততা যাচাই করার জায়গা অনেক কম বলে বিবাহিত বা অবিবাহিত দম্পতিদের মধ্যে সন্দেহ করার প্রবণতা বেড়ে যাচ্ছে অনেকাংশে। আপনার মধ্যে যদি সঙ্গীকে নিয়ে কোন সন্দেহ থাকে তবে তার সাথে কথা বলে নিন সরাসরি। তবুও সন্দেহ থেকে গেলে তাকে ফলো করুন এবং প্রয়োজনে আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেন।

তথ্যসূত্রঃ ইয়াহু লাইফস্টাইল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here