জন্মদাগ হালকা করুন প্রাকৃতিকভাবে

0
419
জন্মদাগের কারণে ব্যক্তিবিশেষ বিব্রতবোধ করতে পারেন

কিছু মানুষ শরীরের বিশেষ বিশেষ জায়গার ত্বকে এক ধরণের দাগ নিয়ে জন্মায়। এগুলোকে সচরাচর আমরা জন্মদাগ বলে জানি।

জন্মদাগের আকার, আকৃতি রঙ ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। বিভিন্ন ধরণের জন্মদাগকে দুটি প্রধান ক্যাটাগরিতে ভাগ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। একটি রঙিন জন্মদাগ, অপরটি রক্তনালী সংলগ্ন বর্ণহীন জন্মদাগ।

জন্মদাগে কখনও ব্যথা হয় না বা চুলকায় না, এমনকি এটি কোন ধরণের ক্ষতির কারণ হয়েও দাঁড়ায় না। তবে জন্মদাগের কারণে ব্যক্তিবিশেষ বিব্রতবোধ করতে পারেন। তবে জন্মদাগ ওঠানোর জন্য কোন মেডিসিন বা কৃত্রিম মলম ব্যবহার না করাই ভালো।

প্রাকৃতিক উপায়ে কিভাবে জন্মদাগ হালকা করা যায় তা নিয়েই আমাদের আজকের লেখা:

ব্যবহার করুন পেঁপেঃ

পেঁপেতে রয়েছে প্যাপেইন নামক এক ধরণের এনজাইম যা ত্বকের মরা কোষ তুলে ফেলে নতুন কোষ সৃষ্টিতে সহায়তা করে। একই সাথে ত্বকের বর্ণ উজ্জ্বল করতেও সাহায্য করে এই এনজাইমটি। আজকাল পেঁপের সাবান আর ক্রিম বাজারে কিনতে পাওয়া যায়। এই ক্রিম প্রতিদিন দুই থেকে তিন বার লাগাতে পারেন শুধু জন্মদাগের অংশটুকুর ওপর।

যদি ক্রিম বা সাবান খুঁজে না পান তবে সরাসরি টাটকা পেঁপে নিয়ে স্লাইস করে জন্মদাগের উপরে ঘষে নিন। ১০ মিনিট ধরে ফলের রসটি ম্যাসেজ করতে থাকুন। প্রতিদিন একবার করে এই পদ্ধতিটি প্রয়োগ করতে পারেন। মনে রাখতে হবে পেঁপের রস ধোয়ার সময় অবশ্যই উষ্ণ গরম পানি ব্যবহার করতে হবে।

লেবুর রস কাজে আসবে জন্মদাগ হালকা করতেওঃ

ছু্রি দিয়ে কেটে লেবু অর্ধেক করে নিন। লেবুর রস চিপে সরাসরি জন্মদাগে লাগিয়ে নিন। ১০ মিনিট ধরে লেবুর রস ঐ জায়গায় লাগিয়ে রেখে গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। পরিষ্কার তোয়ালে দিয়ে জন্মদাগের জায়গাটি মুছে ফেলুন। দিনে তিনবার এই পদ্ধতিটি প্রয়োগ করতে পারেন।

জন্মদাগ ওঠানোর জন্য কোন মেডিসিন বা কৃত্রিম মলম ব্যবহার না করাই ভালো।
জন্মদাগ ওঠানোর জন্য কোন মেডিসিন বা কৃত্রিম মলম ব্যবহার না করাই ভালো।

টমেটোর রস হতে পারে কার্যকর সমাধানঃ

তাজা ও টাটকা টমেটো কেটে তার রস সরাসরি জন্মদাগে লাগিয়ে নিন। ১০ মিনিট অপেক্ষা করে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে জায়গাটি ধুয়ে শুকিয়ে নিন। প্রতিদিন একবার করে এই কাজটি করতে পারেন।

ব্যবহার করতে পারেন অলিভ অয়েলঃ

তুলার একটি বল বানিয়ে তা কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েলের ভিতরে ডুবিয়ে নিন। মনে রাখবেন তুলার বলটি ডুবিয়ে নিতে হবে, নামমাত্র ভিজালে চলবে না। ৫ মিনিট ধরে তুলার বলটি ম্যাসেজ করতে থাকুন। এরপর উষ্ণ গরম পানি দিয়ে জায়গাটি ধুয়ে ফেলুন। দিনে দুই থেকে তিন বার এই পদ্ধতিটি প্রয়োগ করতে পারেন।

আইস প্যাক হতে পারে ত্বকের বন্ধুঃ

বরফ বা ঠাণ্ডা এরকম কোন উপাদান আপনার ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করতে পারে ভেতর থেকে। ত্বকের লাবণ্য ও কমনীয়তা ধরে রাখার জন্য এই পদ্ধতিটি বেশ জনপ্রিয়। জন্মদাগে তাই বরফের প্যাক ব্যবহার করা যায় নিশ্চিন্তে, নিয়মিত ব্যবহারে দাগ পুরোপুরি দূর হতে পারে।

একটি পরিষ্কার কাপড়ে দু-তিন টুকরো বরফ জড়িয়ে নিন। এটি আপনার ত্বককে ঠাণ্ডার ক্ষতিকর দিক থেকে রক্ষা করবে। কখনই বরফ সরাসরি চামড়াই লাগানো উচিৎ নয়। এবার এই বরফের প্যাকটি ১৫-২০ মিনিট ধরে জন্মদাগের উপর ঘষতে থাকুন। ২০ মিনিটের বেশি বরফ ঘষলে তা উল্টো ত্বকের ক্ষতি করতে পারে। এক ঘণ্টা ধরে ঐ জায়গাটুকুকে বিশ্রাম দিন এবার। চাইলে দিনে কয়েকবার প্রয়োগ করতে পারেন এই পদ্ধতিটি।

তথ্যসূত্রঃ বিউটি জিপসি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here