ঘর থাকুক ঠান্ডা!

গরমে ঘরের বাইরের চেয়ে ভেতরটা খুব বেশি শীতল করা যাবে না। তবে বাইরের চেয়ে উত্তাপ যাতে বেশি না হয়, সে ব্যবস্থা করার বেশ কিছু উপায় আছে। ঘর শীতল রাখার বিষয়টি বাড়ি তৈরির পরিকল্পনার সময়ই আমাদের বিবেচনা করতে হয়। খেয়াল রাখতে হবে ঘরে পর্যাপ্ত বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা থাকছে কি না। যদি ঘরটা খোলা থাকে সূর্যের আলো ঘরে প্রবেশ করাটা সে রকম ক্ষতিকর নয়। তবে সূর্যের আলো ঘরের বেষ্টনীর যে তলগুলোতে পড়ছে, সেগুলো ছায়ায় রাখতে পারলে ঘর অনেকটা কম উত্তপ্ত হবে। বাড়ি বা ফ্ল্যাট দক্ষিণ-পূর্ব দিকমুখী করে তৈরি করা সব থেকে ভালো। বেশি ব্যবহৃত ঘরগুলো দক্ষিণমুখী হলেই ভালো। তবে দক্ষিণ দিকের বাতাস যেন ঘরে প্রবেশ করতে পারে।

বাড়ি বানাতে দিক বিবেচনার কারণ হলো সূর্য গরমকালে দক্ষিণ দিকে খাড়াখাড়িভাবে থাকে, তাই দেয়ালে ছায়া ফেলে সহজে। পূর্ব দিকেও সূর্য একটু হেলে থাকে গরমের সকালবেলায়। শুধু বাড়ি নির্মাণে নজর দিলেই হবে না। গরমে স্বস্তির সন্ধান পেতে অন্দরের আসবাব ও গায়ে পোশাক জড়ানোর ক্ষেত্রেও হতে হবে সতর্ক। পশ্চিমের বদ্ধ পোশাক বাদ দিয়ে ঐতিহ্যবাহী ঢিলে সুতির পোশাক অনেক বেশি স্বস্তিদায়ক।

যেভাবে রাখবেন ঘর ঠান্ডা:

* উত্তর দিকে সূর্য আসে না, তাই বাড়তি উত্তাপও হয় না। তবে গরমকালে বাতাসও আসে না, তাই ভেতরের আর্দ্রতা বেড়ে যাওয়ার উপক্রম হবে। পশ্চিমে সূর্যের আলো অনেকটা হেলানভাবে দেয়ালে পড়ায় দেয়ালে ছায়া পাওয়া যায় না। পশ্চিমের দেয়াল তাতে গরম হয়।

* ঘরের দেয়ালের ছাদকে ছায়ায় রাখার চেষ্টা করতে হবে। সম্ভব হলে বারান্দা, সানশেড, কার্নিশ ব্যবহার করুন।

* বাতাস চলাচলের জন্য দক্ষিণ, পূর্ব-দক্ষিণ দিকে যতটা পারা যায় খোলা জায়গা রাখতে হবে।

* বেশি ব্যবহৃত কক্ষগুলো দক্ষিণ, দক্ষিণ-পূর্ব দিকে রাখা ভালো।

* সোফা ব্যবহারের ক্ষেত্রে কতটা তাপ উৎপন্ন করে ও ধরে রাখে সে বিষয় মাথায় রাখতে হবে।

* বৈদ্যুতিক যন্ত্র ব্যবহারে ঘর গরম হয় কি না, সে বিষয়ে নজর দিতে হবে।

* কার্পেটসহ তাপ ধরে রাখে এমন আবরণ ব্যবহার না করা ভালো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here