ফুল টাইম চাকরির পরও বাড়তি আয়ের দারুণ কিছু সুযোগ!

0
418
নিতান্ত শখের বশেই অবসর সময়টাকে কাজে লাগাতে চান ফলপ্রসূ উপায়ে

৯-৫টার চাকরি করার পরও অনেকের আর্থিক সংগতির জন্য প্রয়োজন হয় বাড়তি কিছু আয়ের। অনেকে আবার নিতান্ত শখের বশেই অবসর সময়টাকে কাজে লাগাতে চান ফলপ্রসূ উপায়ে। এমন কিছু কাজের আইডিয়া নিয়েই সাজানো হয়েছে আমাদের আজকের প্রতিবেদনটি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হোক আয়ের উৎস

আপনি হয়তো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুক, টুইটার, ভাইবার ইত্যাদি) বেশি সময় দেন। এর মাধ্যমেই নামতে পারেন ব্যবসায়। অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সামাজিক মাধ্যমগুলোর মাধ্যমে পরিচিতি বাড়াতে চায়। আপনার মতো মানুষই তাদের দরকার। Hootsuite জাতীয় প্ল্যাটফর্ম আপনি পেতে পারেন সহজেই। আপনার একাধিক একাউন্ট সংরক্ষণ এবং পরিচালনার জন্য নিজস্ব শিডিউল করতে পারেন ।

২০১৩ সালে Dreamforce conference এ ফেসবুক জানায় যে, তাদের সাইটে অন্তত 25 million active small business page রয়েছে । আপনার দক্ষতা কাজে লাগানোর এই সুযোগ ছাড়বেন কেন ?

অফুরন্ত সম্ভাবনার দুয়ার রয়েছে ব্লগিং এ

ব্লগিংকে বলা হয় বর্তমানে সময়ের সবচেয়ে স্মার্ট একটি পেশা। যেটি আপনি বিশ্বের যেকোনো জায়গা থেকেই করতে পারবেন। ব্লগিংকে মূলত বাড়তি উপার্জনের জন্য একটি অসাধারণ উপায়ও বলা চলে। ব্লগিংয়ে আছে সময় বেছে নেয়ার একটা অনন্য সুযোগ, যেখানে আপনি আপনার প্রাত্যহিক কাজ সেরেও সেখানে সময় দিতে পারবেন। ব্লগিং নিয়ে অবশ্য আমাদের দেশের জনগণের মাঝে একটা ভুল ধারণা প্রচলিত আছে।

ব্লগিং মূলত দুই মাধ্যমে হয়ে থাকে- এক হচ্ছে নিজের ভাষায়, আরেকটি হচ্ছে আন্তর্জাতিক ভাষায় মানে ইংরেজীতে।

বলা বাহুল্য, প্রতিদিন হাজার হাজার ব্লগ লেখা হচ্ছে- ভ্রমণ, রান্নাবান্না, শিল্প, সাহিত্য, জীবনযাপন ইত্যাদিসহ আরো নানাবিধ বিষয় নিয়ে। গ্রাহক, বিপণনের শাখা সৃষ্টি, বিজ্ঞাপন খাত ইত্যাদি মিলিয়ে ব্লগারদের উপার্জন কিন্তু নিয়মিত। আপনার লেখার দক্ষতা বাড়ার সাথে সাথে আপনি নিজে স্বাধীন ব্লগিং ছাড়াও পেশাদার লেখক হিসাবে কাজ করতে পারেন।

অফুরন্ত সম্ভাবনার দুয়ার রয়েছে ব্লগিং এ

হতে পারেন গ্রাফিক ডিজাইনার

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা থাকলে এই পথে আপনি যথেষ্ট সুবিধা পাবেন। তবে আপনার সুযোগ থাকছে নিজেই গ্রাফিক ডিজাইনের প্রাথমিক পাঠ বুঝে নেবার। সামনে গ্রাফিক্স ডিজাইনের জন্য রয়েছে অপার ভবিষ্যত এবং বিলিয়ন ডলার মার্কেটপ্লেস। আপনি চাইলে অনলাইনে কিংবা ইউটিউবে বসেই গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে পারেন অথবা শিখতে পারেন কোনো ইন্সটিটিউটে গিয়েও। গ্রাফিক ডিজাইন শিখতে হলে আপনাকে Adobe software, Canva, Visme ইত্যাদি ব্যবহারের দক্ষতার পাশাপাশি আপনার সৃজনশীলতা আর একাগ্রতার সম্মিলনের উপর আপনার পুরো সাফল্য নির্ভর করবে।

সঙ্গীতকে বেছে নিতে পারেন পেশা হিসেবে

ধরুন আপনার গানের গলা অনেক ভালো, কিন্তু ভাগ্যের দুষ্ট চক্রে আপনাকে ৯টা থেকে ৫টা পর্যন্ত চাকরি বেছে নিতে হয়েছে। তবে চাইলে এই সময়চক্রের বাইরে গিয়েও আপনার গান গাওয়ার প্যাশনকে আবার জাগিয়ে তুলতে পারেন, আপনার প্যাশনকেই মোশন হিসেবে তৈরি করে নিন। বলা যায় আমাদের সমাজে এমন অনেক মানুষ আছে যাদের গান শিখার ব্যাপারটা একটা সময়ে হারিয়ে যায় কিংবা সম্ভবপর হয়ে উঠে না।

বলা যায়, একটি নির্দিষ্ট বাদ্যযন্ত্রের পরিবর্তে একাধিক বাদ্যযন্ত্র শিখানো হতে পারে নিখুঁত একটি ব্যবসায়িক উদ্যোগ। শুরু করতে পারেন দু-একজন শিক্ষার্থী দিয়ে, আস্তে আস্তে আপনার পরিচিতি বাড়বে। যেহেতু সাধারণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গান-বাজনা চর্চার উদ্যোগ কম, আপনার সুযোগ থাকছে নিজের ব্যবসা আরও বড় করার। এতে প্যাশনও থাকলো, আবার কাজেও কোনো ক্ষতি হলো না।

অ্যাপস ডেভেলপমেন্টের চাকরিটিও কিন্তু খারাপ নয়

অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট একটি নতুন, বর্ধিষ্ণু ব্যবসাক্ষেত্র। ২০১৪ সালে iPhone app market এককভাবে freelancer.com এ ৪,০০০ এর উপরে চাকরির সুযোগ তৈরি করে। এছাড়াও অ্যাপ বিক্রি করার হাজারটা ওয়েবসাইট হয়েছে যেখানে আপনি খুব সহজেই অ্যাপ বিক্রি করতে পারবেন।

কোডিং শিখতে আপনার কিছু সময় লাগবে যদি আপনি টাকা উপার্জনের জন্য এতটা মরিয়া হয়ে না উঠেন, কিন্তু কিছু সময় পর আপনি ঘরে বসেই অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট করতে পারবেন। সঠিক সময়ে কোডিংও হতে পারে আপনার ব্যবসা দাঁড় করানোর রাস্তা।

পোষা প্রাণী সংরক্ষণও হতে পারে অবসর সময়ের কাজ

পোষা প্রাণী সংক্রান্ত একাধিক ব্যবসা চালু আছে । Pet Walking থেকে শুরু করে Pet Parlor খুবই জনপ্রিয় এ দেশের বাইরে । তবে দেশেও প্রাণী অনেকেই পুষে থাকেন। সন্ধ্যার দিকে অর্থের বিনিময়ে মানুষের পোষা প্রাণী দেখেশুনে রাখা একটি আকর্ষণীয় ব্যবসার পন্থা হতে পারে। উপার্জনের পাশাপাশি আপনার সময়টাও কিন্তু একঘেয়ে কাটবে না। আর আপনার খরচও বলতে গেলে শুন্যের কোঠায়।

তথ্যসূত্রঃ ইন্টারপ্রিনিউয়ার ডট কম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here