তরমুজ খাওয়ার আগে এই বিষয়গুলো অবশ্যই জেনে রাখুন!

এ ফলের প্রায় শতকরা ৯১ দশমিক ৫ ভাগ পানি। গরমে শরীরে পানির অভাব পূরণ করতে তরমুজ অদ্বিতীয়।

ত্বকে জ্বালা ধরানো গরমে যখন প্রাণ আইটাই, স্বস্তি খুঁজতে অনেকেই তরমুজ খান। বরফ দেয়া শরবতও খেতে পারেন তরমুজের। হাঁপিয়ে যাওয়া প্রাণটা জুড়িয়ে যাবে। গরমে পানিতে ভরা এ ফলের কোনও বিকল্প নেই।  উপকারিতাও কম নয়। কিন্তু একটু বেচাল হলে কিন্তু ক্ষতিও হতে পারে মারাত্মক।

তাহলে তরমুজ খাওয়ার ক্ষেত্রে কী কী বিষয় মাথায় রাখবেন?

দিনের যে কোনও সময় তরমুজ খান। তাতে কোনও আপত্তি বা অসুবিধা নেই। কিন্তু রাতে বা ডিনারের পর ফল হিসেবে তরমুজকে না রাখারই পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা।

আগে জেনে নেওয়া যাক, তরমুজের উপকারিতা কী কী? এ ফলের প্রায় শতকরা ৯১ দশমিক ৫ ভাগ পানি। তাই এই গরমে শরীরে পানির অভাব পূরণ করতে তরমুজ অদ্বিতীয়। এছাড়া সুগারের ঘাটতি পূরণ করতেও এর জুড়ি মেলা ভার। ব্লাড প্রেসার ঠিক রাখা থেকে কিডনি ও হার্টের সমস্যাও দূর করতে ওস্তাদ তরমুজ। এছাড়া এ ফলে থাকে পটাশিয়াম। তাও শরীরের জন্য অত্যন্ত কার্যকরী। এই গরমে হিট স্ট্রোকের হাত থেকে বাঁচতেও জরুরি এ ফল। তবে রাতে খেলে কিন্তু হিতে বিপরীত।

গরমে পানিতে ভরা এ ফলের কোনও বিকল্প নেই।
গরমে পানিতে ভরা এ ফলের কোনও বিকল্প নেই।

কী কী ক্ষতি হতে পারে সেক্ষেত্রে?

হজমের ক্ষেত্রে তরমুজ যে সুপাচ্য তা বলা যাবে না। তাই রাতে খেলে পেটের গোলমাল হওয়ার তীব্র সম্ভাবনা দেখা যায়। রাতের দিকে হজম প্রক্রিয়া ধীরগতিতে চলে। ফলে তরমুজ সেখানে বিপাকে ফেলতে পারে।

যেহেতু তরমুজে সুগারের পরিমাণ বেশি। তাই রাতে এ ফল খেলে ওজন বাড়ার সম্ভাবনা বেশি থাকতে পারে।

যেহেতু তরমুজে পানিও প্রচুর পরিমাণে থাকে, দিনে তা উপকারি হলেও, রাতে বিপাকে ফেলতে পারে। কেননা এর ফলে ঘনঘন প্রস্রাবের বেগ আসতে পারে। তার জেরে ঘুম নষ্ট ও ঘুম কম হওয়াজনিত নানা সমস্যা দেখা যেতে পারে।

এই কটি কারণের জন্যই রাতে তরমুজ না খাওয়ার পরমার্শ ডাক্তারদের। তবে রাতে ছাড়া দিনের যে কোনও সময়ে খাওয়ার জন্য গরমে এ ফলের জুড়ি মেলা ভার।

সূত্রঃ সংবাদ প্রতিদিন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here