হেলথি হ্যাক্স- লো ফ্যাট খাবারের সাহায্যে ওজন কমানোর টিপস

হেলথি হ্যাক্স- লো ফ্যাট খাবারের সাহায্যে ওজন কমানোর টিপস

শরীরের বাড়তি ওজন কিন্তু চিন্তার বিষয়। নানা ধরনের সমস্যা তৈরি হয় শরীরের ওজন বেড়ে গেলে। তাই সতর্ক থাকতে হবে। কয়েকটি ক্লিনিকাল পরীক্ষার ফলাফল অনুযায়ী কম ফ্যাট ডায়েট কার্ডিওভাসকুলারের সাথে সম্পর্কিত রোগ নিরাময়ে সাহায্য করে। 

আমরা প্রায় সবাই কমবেশি জাঙ্কফুড খেয়ে অভ্যস্ত কিন্তু অধিকাংশ সময় এসব জাঙ্কফুডই ওজনজনিত বিভিন্ন রোগ ডেকে আনছে। এসব ক্ষেত্রে আপনি চাইলেই জাঙ্ক ফুড গ্রহণ বাদ দিতে পারেন ! কিন্তু এই খাবারগুলোই একটু কৌশলী উপায়ে গ্রহণের ফলে আপনি ওজনও কমাতে পারেন। 

ব্রেকফাস্ট, লাঞ্চে ডায়েটের দিকে খেয়াল রাখলেও বিকেলের দিকেই আমরা মূলত অস্বাস্থ্যকর খাবারের দিকে ঝুঁকি। ভাজাভুজি, ফুচকা, চাট, ভেলপুরি এই সময় আমাদের টানে! সত্যিই কি ফুচকা, চাট, ভেলপুরি অস্বাস্থ্যকর? এই সব খাবারের উপাদান পুষ্টিকর হলেও রাস্তাঘাটের ধুলাময়লা, হাইজিনের অভাবে শরীর খারাপ হতে পারে এ সব খাবার থেকে।কিন্তু তাই বলে খাওয়া ছেড়ে দিতে হবে ব্যাপারটা এমন না।

এই সব খাবার স্বাস্থ্যসম্মতভাবে খেলে তা পুষ্টি জোগানোর পাশাপাশি অনেকক্ষণ পেট ভরা রাখায় এবং একইসাথে ওজন কমাতেও সাহায্য করে ।  

ছোলার ডাল দিয়ে বিভিন্ন স্ন্যাকস

পানিতে ভেজানো ছোলা ডাল বানানোর সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর উপাদান। ১০০ গ্রাম ছোলা ডালের মধ্যে রয়েছে ২৫ গ্রাম প্রোটিন। কোলেস্টেরল একেবারেই থাকে না, পাশাপাশি উৎসেচক, ভিটামিন, মিনারেল, ক্লোরোফিলের মতো অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট থাকে এবং এজন্যই মুগ ডালকে অন্যতম সুপারফুড বলে থাকেন ডায়েটিশিয়ানরা। কাঁচা মুগ ডালের সঙ্গে আলু সেদ্ধ, পেঁয়াজ, টোম্যাটো, লেবুর রস, মশলা দিয়ে যেমন সুস্বাদু স্ন্যাকস তৈরি হয়, তেমনই এই চাট পুষ্টিগুণে ভরপুর।

চানার চাট

ছোলা ডালের বদলে বানাতে পারেন কাবলি চানার চাট। এই চানার মধ্যেও থাকে প্রোটিন, ফাইবার, ম্যাঙ্গানিজ, ফোলেট।আবার যদি বাদাম খেতে ভালবাসেন তা হলে এই চাটই বানাতে পারেন চিনেবাদাম দিয়ে। প্রোটিন, অ্যামাইনো অ্যাসিড ও ভিটামিন ই-তে সমৃদ্ধ চিনেবাদাম। সেই চিনেবাদামকেই আরও পুষ্টিকর করে তুলবে টোম্যাটো, পেঁয়াজ, ধনেপাতা।

দই বড়া

চাটের মতোই অন্য আরেকটি স্ন্যাকস হল দই বড়া। বিউলি ডাল দিয়ে তৈরি বড়ায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ও ফাইবার। সেই সঙ্গেই প্রোবায়োটিকে পরিপূর্ণ দই পেট ঠান্ডা রাখতেও সাহায্য করে।

তেঁতুল, গুড়, মশলার চাটনিও স্বাস্থ্যের পক্ষে উপকারি। দই থাকার কারণ অন্যতম লো ক্যালোরি স্ন্যাকসও বটে। কেনা দই বড়া অনেক সময় ডিপ ফ্রাই করা হয়। বাড়িতে টাটকা তেলে ভাজা বড়া ও টাটকা দই দিয়ে বানিয়ে নিন দই বড়া।

সুষম জীবনযাত্রার জন্য শুধুমাত্র সুষম ডায়েটের গুরুত্বের উপর যথেষ্ট জোর দেওয়া যায় না,এর সাথে সুষম খাদ্য বজায় রেখে এবং দেহের 

প্রয়োজনীয় সমস্ত প্রয়োজনীয় পুষ্টি মেটানোর উদ্দেশ্য বিবেচনায় রেখে নিময়মাফিক জীবনযাপন করা উচিত । আপনার অনুশীলনের জন্য সময় এবং একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট প্রিপারেটরি দরকার। একটি সঠিক খাবার পরিকল্পনা শরীরের আদর্শ ওজন 

অর্জন করতে এবং ডায়াবেটিস, কার্ডিওভাসকুলার এবং অন্যান্য ধরণের ক্যান্সারের মতো দীর্ঘস্থায়ী রোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করে। এই কাজের জন্য সময় নেওয়া আজকের ব্যস্ত জীবনে কিছুটা কঠিন। তবে আপনার প্রচেষ্টা অবশ্যই একদিন আপনার জন্য কাজ করবে।

সাম্প্রতিক